ভারতের বাইরে হতে পারে আইপিএলের বাকি ম্যাচ

৭১ কন্ঠ অনলাইন ডটকম
করোনার জেরে মাঝপথে এসেই স্থগিত হয়ে গেছে এই মৌসুমের আইপিএল। ক্রিকেটারদের নিরাপদে বাড়ি ফেরানোই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ভারতীয় বোর্ডের। কিন্তু এর মধ্যেও আশা ছাড়ছে না বিসিসিআই। চলতি বছরই বাকি টুর্নামেন্ট আয়োজনের চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

ক্রিকেট মহলের অন্দরে কান পাতলে অন্তত তেমনটাই শোনা যাচ্ছে। অর্থাৎ পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোলে, চলতি বছরের শেষের দিকেই অসম্পূর্ণ আইপিএলের বাকি ম্যাচের সাক্ষী থাকতে পারবেন ক্রিকেটপ্রেমীরা। কিন্তু সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হল, অতিমারীর মধ্যে সুরক্ষিতভাবে কোথায় টুর্নামেন্টের আসর বসানো সম্ভব?

শোনা যাচ্ছে, এ বছরের শেষের দিকে ভারতে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটলেও আপাতত এদেশে আইপিএল হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। বায়ো-বাবলে ক্রিকেটারদের রাখার পরও করোনা সংক্রমণের যা অভিজ্ঞতা হলো, তার পর আর কোনো ঝুঁকি নিতে চায় না গভর্নিং বডি। তাছাড়া ভারতে কোভিডের ভয়াবহতা দেখে ত্রস্ত বিদেশী ক্রিকেটাররা। বাড়ি ফেরার জন্য তৎপর তারা। ফলে অতিমারীর মধ্যে তারা ভারতে ফিরতে চাইবেন না বলেই মনে করা হচ্ছে।

এমন পরিস্থিতিতে তাই বাইরের কোনো দেশেই আইপিএলের আসর বসতে পারে। এক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরশাহী। যেখানে গত বছর সংক্রমণের মধ্যেও সফলভাবে টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছিল বিসিসিআই। তাছাড়া ভারত থেকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সরে আমিরশাহী চলে গেলে এক্ষেত্রে আইপিএল আয়োজনে সুবিধাই হবে। ২২ অক্টোবর বিশ্বকাপ শুরু আগে ওই দেশেই আইপিএলের ৩১টি ম্যাচ খেলে নিতে পারবেন ক্রিকেটাররা।

তবে একইসাথে বিসিসিআইয়ের কাছে থাকছে আরও দু’টি বিকল্প ভেন্যু। একটি ইংল্যান্ড এবং অন্যটি অস্ট্রেলিয়া। বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য আগামী মাসেই ইংল্যান্ড যাচ্ছে কোহলি অ্যান্ড কোং। তারপর পাঁচ টেস্টের সিরিজের জন্য সেখানেই থাকবে দল। সেক্ষেত্রে সেপ্টেম্বরের শেষ এবং অক্টোবরের শুরুর ফাঁকা সময়টায় ইংল্যান্ডেই আইপিএলের আয়োজন করা যেতে পারে। তবে তা একমাত্র সম্ভব যদি ব্রিটেনের মাটিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজিত হয়।

এদিকে, বিসিসিআই চাইলে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সাথে একটি চুক্তির পথে এগোতে পারে। চলতি বছর ওই দেশে হবে বিশ্বকাপ। আর ২০২২ সালের বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব নেবে ভারত। তাহলে এই বছর ডনের দেশেই হতে পারে আইপিএলের বাকি ম্যাচগুলো। এবার দেখার, ভেন্যু বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কোন পথে এগোয় ভারতীয় বোর্ড। তবে ফ্র্যাঞ্চাইজি, সম্প্রচারকারী সংস্থা, স্টেকহোল্ডাররা চলতি বছরই ফের আইপিএল হওয়া নিয়ে বেশ আশাবাদী।

Facebook Comments Box