লক্ষ্মীপুর সরকারি প্রাথমীক বিদ্যালয়ের পুকুর থেকে বালু উত্তলন

নিজস্ব প্রতিনিধি
প্রভাবশালী ব্যক্তিরা যখন অপকর্ম ও অবৈধ কাজে জড়িত থাকেন, তখন তাঁদের প্রতিহত করা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। লক্ষ্মীপুর সদর ১৮নং কুশাখালী ইউনিয়ন ৫নং ওয়ার্ড
পূর্ব চরমটুয়া পাকা রাস্তার মাথা এলাকাই কিছু সরকারি জমি ও কিছু ব্যক্তিমালিকানাধীন কৃষি  ফসলি জমি থেকে দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ ড্রেজিং মেশিন দিয়ে  মাটি ও বালু উত্তোলন করে আসছে। মোঃ মাসুদ  (৩৫) দীর্ঘদিন ধরে মাটি ও বালু উত্তোলনের ফলে স্থানীয়  কৃষকদের ফসলি জমি বিনষ্ট হয়ে পরছে ।

জমির পাশে অবস্থিত একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (পূর্ব চরমটুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়)   এখন ফসলি জমি সহ সরকারী বিদ্যালয়টি হুমকির মুখে রয়েছে।  উত্তোলনকাজে বাধা দিতে গেলে উল্টো কৃষকদের হুমকি দেওয়া হয়েছে। অবস্থা তো অনেকটা মগের মুল্লুকের মতো। তার যা খুশি তাই করছেন মাসুদ, মাসুদ (৩৫)  মৃত  আবুল কালাম আজাদের ছেলে
মাসুদের বিরুদ্ধে  জমি আত্মসাতের নানান অভিযোগো রয়েছে।

প্রশ্ন হচ্ছে প্রভাবশালী বলে কি তঁাদের যা খুশি তা করার অধিকার জন্মে গেছে? আইনের শাসন কি তঁাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন, ২০১০-এর ধারা ৫-এর ১ উপধারা অনুযায়ী, পাম্প বা ড্রেজিং বা অন্য কোনো মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ বালু বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। ধারা ৪-এর (খ) অনুযায়ী, সেতু, কালভার্ট, বাঁধ, সড়ক, মহাসড়ক, রেললাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনা অথবা আবাসিক এলাকা থেকে এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন নিষিদ্ধ। আইন অমান্যকারী দুই বছরের কারাদণ্ড ও সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

Facebook Comments Box