লক্ষ্মীপুর জেলা আ’লীগের শক্ত অবস্থান ধরে রাখতে পুনরায় সভাপতি পদে  পিংকুকে দেখতে চায় তৃণমূল’

বিএম সাগর লক্ষ্মীপুর : নগর কিংবা শহর থেকে রাজনীতি করে নেতা হননি লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিঞা গোলাম ফারুক পিংকু । তিনি লক্ষ্মীপুরের স্থানীয় রাজনীতি থেকে উঠে আসা তথা তৃনমূল থেকে বেড়ে উঠা একজন সৎ এবং দক্ষ রাজনীতিবিদ। তিনি একজন সফল রাজনৈতিক নেতা হিসাবেও বিবেচিত। তার সততা , দক্ষতা, নিষ্ঠা আর নিজের সংকল্পের প্রতি একাত্বতাই তাকে আজ এই পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন বলে মনে করছেন দলীয় তৃণমুলের সকল পর্যায়ের নেতা কর্মীরা ।বঙ্গ বন্ধুর আদর্শ আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বকে বুকে ধারণ করে সততার সাথে সামনে এগিয়ে যাচ্ছেন গোলাম ফারুক পিংকু । জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনের তারিখ যতই গনিয়ে আসছে , তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মাঝে চলছে যল্পনা কল্পনা । কে হবেন আগামী জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনকে গিরে গত কয়েকদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পুনরায় সভাপতি পদে গোলাম ফারুক পিংকুকে দেখতে চায় তৃণমূল’। গত ২০১৮ সালে সংসদ নির্বচনে লক্ষ্মীপুর -৩ আসন থেকে দলথেকে মনোনিত হওয়ার পর ও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ওপর আস্থা এবং বিশ্বাস রেখে নিজের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে দলের মনোনীত প্রার্থী একে এম শাহাজান কামালের পক্ষে ভোট করে বিপুল ভোটে শাহজাহান কামালকে বিজয় করে এমপি নির্বাচিত করেন। গোলাম ফারুক পিংকু দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব থাকাকালিন জেলার ৫৮ ইউনিয়নের মধ্য ৫১ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলের মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থীদের পক্ষে দিন রাত মাঠ পর্যায়ে প্রচার প্রচারনার মাধ্যমে চেয়ারম্যানদেরকে ভোটের মাধ্যমে বিজয় করেন। লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সর্বশেষ সম্মেলন হয় ২০১৫ সালের (৩ মার্চ)। সেসময় মিয়া গোলাম ফারুক পিংকুকে সভাপতি ও অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়নকে সাধারণ সম্পাদক করে লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছিল। গোলাম ফারুক পিংকু সভাপতি হওয়ার পর থেকে জেলা আওয়াসমীলীগ হয়েছে সুসংগঠিত, সম্মেলেনের মাধ্যমে তার নেতৃত্বে জেলার প্রত্যকটি উপজেলা গুলোতে নতুন করে কমিটি গঠন করা হয়েছে,তাছাড়া সেেম্মল থেকে বাদ পড়ে নাই প্রত্যকটি পৌরসভা ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড গুলোর সম্মেলনও । তার নেতৃত্বে সম্পুর্ণ হয়েছে সকল কমিটি । এক কথায় বলতে হয় গোলাম ফারুক পিংকু ছিলেন সৎ এবং দক্ষ একজন রাজনীতিবিদ এবং দলের তৃণমুল নেতা কর্মেিদর জন্য একজন নিবেদিত প্রাণ। ২০১৫ সালের (৩ মার্চ) লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলন হওয়ার ৫ বছর পুর্তি হওয়ার পরথেকে , বিশ্ব করোনা সংক্রামন ও রাজনীতি জটিলতার কারনে কয়েক দফায় সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করেও সফল হয়নি কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীরা। তবে আগামী (২১ নভেম্বর) জেলা আওয়ামীলীগের সম্মেলনের চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে স্বশরীরে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ। নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গোলাম ফারুক পিংকু তৃণমুল নেতা কর্মীদের একজন যোগ্য অভিভাবকের মতো নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তাদের সুখে-দুঃখে পাশে দাঁড়াচ্ছেন। জেলা আওয়ামীলীগকে সু-সংগঠিত করতে দিন-রাত কাজ করেন তিনি। তাই তাদের আস্থা ও ভরসার প্রতীক গোলাম ফারুক পিংকুকে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে পুনরায় দেখতে চায় তারা। জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু বলেন, দীর্ঘদিন ধরে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পাালন করে আসছি তাই দল এবং তৃণমূলের নেতাকর্মীরা চাইলে আমি পুনরায় সভাপতির দায়িত্ব পেলে দলকে আরো সু-সংগঠিত করে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বচনে প্রধানমন্ত্রী জননেন্ত্রী শেখে হাসিনাকে আবার ক্ষমতা আনার জন্য তৃণমুলকে নিয়ে কাজ করবো ইনশাল্লাহ। আপাতত দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সম্মেলন সফল করার প্রস্ততি নিচ্ছি।

Facebook Comments Box