ভয়ঙ্কর আতঙ্কে সারা দেশ কাঁপছে : সেলিমা রহমান

আলোকিত সকাল ডেস্ক

ভয়ঙ্কর আতঙ্কে আজ সারা দেশ কাঁপছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বেগম সেলিমা রহমান। আজ শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দল আয়োজিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সেলিমা রহমান বলেন, ‘আজ কথা বলার স্বাধীনতা নাই,ন্যায়বিচার নাই। আজ শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। আজকে আছে খুন,গুম, ধর্ষণ, দুর্নীতি ও শেয়ারবাজার লুট। ভয়ঙ্কর আতঙ্কে আজ সারা দেশ কাঁপছে।’

বিএনপির এই নেত্রী বলেন, ‘নারী সমাজের আজকে জীবনের কোনো নিরাপত্তা নেই। আপনারা দেখেছিলেন শিক্ষা খাতে নারীদের কতটা অগ্রগতি হয়েছিল। কিন্তু আজকে কিশোরীরা স্কুল কলেজে যেতে ভয় পায়। কেন ভয় পায়? কারণ আজকে শিক্ষকের উপর আক্রমণ হচ্ছে, কিন্তু এর কোনো বিচার হচ্ছে না। ক্ষমতার প্রভাব এবং দুর্নীতির মধ্য দিয়ে তারা এ সকল কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন,‘বিশ্বাজিৎকে প্রকাশ্য দিবালোকে হত্যা করা হয়েছিল। আদালতে তাদের বিচারও হয়েছিল। তারা ক্ষমতার প্রভাবের সাথে জড়িত ছিল। আজকে তাদের কার কি হয়েছে তা আমরা জানি না। সাগর-রুনী হত্যা, তনু হত্যা, নুসরাত হত্যা একের পর এক হত্যাকাণ্ড ঘটে যাচ্ছে। প্রতিটা হত্যাকাণ্ডের পর আন্দোলন হয়, সরকার বলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না কিন্তু আস্তে আস্তে সরকার সব ভুলে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজকে বরগুনায় প্রকাশ্যে দিবালোকে রাজপথে রাফিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। রাফি হত্যাকারী নয়ন-বন্ড অনেকদিন যাবৎ অপরাধ সংগঠিত করে আসছিল। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের গ্রেপ্তার নাম করে অপরাধ করতে সহযোগিতা করেছিল।’

সেলিমা রহমান বলেন, ‘আজকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সম্পূর্নভাবে ব্যর্থ হয়েছে। কারণ বাংলাদেশের এই অবৈধ সরকার যারা মিডনাইট নির্বাচন করে ক্ষমতায় এসে অবৈধভাবে সংসদ চালাচ্ছে তারা এসব নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। কারণ তারা নিজেরাই অনৈতিক, তাদের মধ্যে কোনো বিবেকবোধ নাই।’

বিএনপির এই নেত্রী বলেন, ‘বাজেটে কোনো আয়-ব্যয়ের ভারসাম্য নেই। বাজেটে গরীবের উপর চাপানো হয়েছে করের বোঝা। এই বাজেট দেওয়ার পরও বাংলাদেশের জনগণ উত্তপ্ত, তারা ক্ষোভ প্রকাশ করছে। কাজেই আমরা জানি জনগণ আজকে সচেতন। তাই এ অবস্থা আর চলতে পারে না, চলতে দেওয়া হবে না।’

তিনি বলেন, ‘আসুন, সারা দেশের জনগণকে একত্রিত করে আমরা প্রতিরোধ গড়ে তুলি। ইনশাআল্লাহ খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে ও একটি সুষ্ঠ নির্বাচন দিতে বাধ্য করা হবে এবং দেশে সুশাসন ও গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা হবে।’

খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে কারারুদ্ধ করে রাখা হয়েছে এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘আজকে দীর্ঘ ১৫ মাস ধরে খালেদা জিয়াকে অন্যায় ভাবে অগণতান্ত্রিকভাবে কারারুদ্ধ করে রেখেছে এই অবৈধ সরকার। কারণ তারা জানে খালেদা জিয়া কারাগারের বাইরে থাকলে এই সরকার মিডনাইট এর নির্বাচন কোনোভাবেই করতে পারত না। তিনি যদি মুক্ত থাকতেন তাহলে তারা কোনোভাবেই একদলীয় শাসন ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করতে পারত না। সেজন্য নির্বাচনের আগ মুহূর্তে দেশনেত্রীকে তারা কারারুদ্ধ করেছে।’

মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসেরর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে সিনিয়র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান প্রমুখ বক্তব্য দেন।

Facebook Comments Box