বিটিভির কত স্মৃতি উস্কে দিয়ে চলে গেলেন ‘টারজান’

৭১কন্ঠ ডটকম
তখন আমাদের বাড়িতে কেন আশপাশের অনেক বাড়িতেই টেলিভিশন ছিল না। অনেকদূর গিয়ে পছন্দের একটা অনুষ্ঠান দেখতে হতো। আর সে সময়ের সকল পছন্দের সকল কিছুর প্রতি ছিল দুর্নিবার আকর্ষণ। টারজান আর বানরটা। তাদের সখ্য অন্যরকম ছিল। তাই শুক্রবারের সকালটা ছিল দৌঁড়ের ওপর। কোনো বাড়ির লোকেরা বিরক্ত হলে আরেক বাড়িতে, বাসার ভেতর ঢুকতে না দিলে জানালায় ঝুলে পড়তাম।
জানালায় ঝুলে টারজান দেখেছি, শক্তিমান দেখেছি। সিনবাদ রবিনহুড দেখার জন্য অবশ্য ঝুলতে হতো না। কেননা ওসব শুরুর অনেক আগে ই মেঝে দখল শুরু হয়ে যেত।
বিটিভিতে টারজান যে প্রজন্ম দেখেছে, তারা কে না টারজান হতে চাইতো? সেসময়ের ট্রেন্ডই এমন ছিল- রাস্তা দিয়ে যেতে একটা দঁড়ি দেখলে ঝুলে যাওয়ার চেষ্টা করতো ছেলে-পেলেরা। আর আমাদের তো কোনো কথাই নেই। মনির দেওয়ানির মাঠ, পুকুর- সুন্দরীপাড়ার বটগাছের একটা শেকড় থেকে ঝুলে আরেকটা শেকড় ধরার প্রচেষ্টা তারপর উপুড় হয়ে নাক মুখ ছিলের যাওয়া এসবই ছিল নিত্য ঘটনা।
আমরা সত্যিই ম্যাগগাইভার দেখার পর টারজানটাই বেশি হবার চেষ্টা করতাম। কেননা টারজানের লাইফটাই তো বেশি রোমাঞ্চকর। বনে জঙ্গলে ঘুরে বেড়ায়, মুখ দিয়ে একটা শব্দ করে শেকড় ধরে দ্রুত অনেকদূরে চলে যায়। টারজান আমাদের কল্পনার মধ্যেই ছিলেন। আজ এলেন বাস্তবতায়। যখন টারজান ৫৮ বছর বয়সে বিমান দুর্ঘটনায় মারা গেলেন। একসঙ্গে অনেকগুলো স্মৃতি উস্কে দিয়ে, মন ভার করে দিয়ে বিটিভির টারজান চলে গেলেন।

Facebook Comments Box