বদলগাছীতে গড়ে উঠছে অবৈধ ইটভাটা

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বদলগাছীতে দিনের পর দিন অবৈধ ইটভাটা গড়ে উঠছে। উপজেলায় ৪২টি ইটভাটা অবৈধভাবে গড়ে উঠছে। এসব ইটভাটায় ২/৩ ফসলি প্রায় ১৪৮ হেক্টর কৃষিজমি গ্রাস করছে। এর মধ্যে পাঁচটি ইটভাটা বন্ধ রয়েছে।

খাদাইল মৌজার আমিন ব্রিকস-এর মালিক রুহুল আমিন বলেন, আমি বার্ষিক ২৫ হাজার টাকা বিঘা হিসাবে জমি ভাড়া নিয়ে ভাটা চালিয়ে যাচ্ছি।

উপজেলার মথুরাপুর ইউপির চাপায় নগর মৌজায় মুনব্রিকস-এর মালিক মো. বাচ্চু রহমান বলেন, আমি ২৩ বিঘা জমি ভাড়া নিয়ে ভাটার কার্যক্রম চালাচ্ছি।

মিঠাপুর ইউপির রুকিন্দিপুর মৌজার এবি এ ব্রিকস-এর মালিক আজাহার বলেন, আমার নিজের জমি কিছু আছে কিছু ভাড়া মোট ২৮ বিঘা জমি রয়েছে।

অপরদিকে লোকালয়ে গড়ে উঠা ইটভাটাগুলোর নির্গত বিষাক্ত ধোঁয়ায় পুড়ছে পটল, বেগুন, গাছসহ বিভিন্ন ফসলাদি। ফলহীন হয়ে পড়ছে নারিকেল আম, কাঁঠাল গাছসহ অন্যান্য ফলদ বৃক্ষ। এ ছাড়াও পরিবেশ হারাচ্ছে ভারসাম্যতা। ফলে কৃষকরা হচ্ছে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত এবং বিভিন্ন রোগ-ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে ভাটা এলাকার জনসাধারণ।

ইটভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম বলেন, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র পাওয়ার জন্য বহুপূর্বে আবেদন করা হয়েছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের ইন্সপেক্টর মকবুল হোসেন বলেন, ভাটা মালিকেরা যে আবেদন করেছে সেটি হাইকোর্টে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান আলী বলেন, উপজেলার ২/৩ ফসলি কৃষি জমিতে ইটভাটা গড়ে তুলে ইট পোড়ানোর কাজ বন্ধ করার জন্য বহুবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করানোর পাশাপাশি কৃষি জমি রক্ষা বদলগাছী উপজেলা কমিটি সভায় বিষয়টি উত্থাপন করেও কোনো সুফল পাওয়া যায়নি। জরুরিভিত্তিতে কৃষি জমি রক্ষার ব্যবস্থা না নিলে কৃষি খাতে ব্যাপক ধস নামবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুম আলী বলেন, এ বিষয়ে একাধিকবার ভ্রম্যামাণ আদালতের ম্যাধমে জরিমানা করা হয়েছে। তার পরও রোধকরা সম্ভব হচ্ছে না।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box