প্রোটিয়া বধের ছক কষছে লংকানরা

আলোকিত সকাল ডেস্ক

আসরজুড়ে অপরাজিত থাকা নিউজিল্যান্ডকে পাকিস্তান হারিয়ে দেয়ায় বিশ্বকাপের অনেক হিসাবনিকাশ এক ঝটকায় বদলে গেছে। আজ লংকানরা যদি দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারায়, তাহলে সেমিফাইনালের লড়াই হয়ে উঠবে আরও কঠিন। এই মুহূর্তে শ্রীলংকা সপ্তম স্থানে থাকলেও দু’পয়েন্ট পেলেই এক লাফে তারা চলে যাবে পঞ্চম স্থানে, ইংল্যান্ডের ঠিক নিচে। যে ইংল্যান্ড হাসতে হাসতে সেমিফাইনালে পৌঁছে যাবে বলে ভাবা হয়েছিল, তারাও এখন প্রথম চারে জায়গা পাওয়ার জন্য লড়ছে। পয়েন্ট তালিকার অবস্থা এখন ত্রিশঙ্কু সংসদের মতো, পরের দিন কোন দল কোথায় থাকবে, আগের দিন তা বলা প্রায় অসম্ভব। সেমিফাইনালের দৌড় এবার সত্যিই জমে উঠেছে।

অন্যদিকে, বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার ভাগ্য চিরকালই খারাপ, কিন্তু এত খারাপ ফল তাদের আগে হয়নি। এই নিয়ে দ্বিতীয়বার তারা প্রথম রাউন্ডের গন্ডি পেরোতে ব্যর্থ হলো। তবে যাদের আর কিছুই হারানোর নেই, তারা আত্মসম্মান রক্ষার স্বার্থে শেষ দুটো ম্যাচ যে দারুণ খেলে দেবে না, তা কে বলতে পারে? আর সেটা হলেই আবার সব হিসাব ওলটপালট হয়ে যাবে। বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় রিভারসাইড ডুরহামে দল দুটো একে অপরের মুখোমুখি হবে।

স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আসরজুড়ে ধুঁকতে থাকা শ্রীলংকার অবিশ্বাস্য এক জয়ে ম্যাড়মেড়ে বিশ্বকাপ আগেই প্রাণ ফিরে পেয়েছিল। যার সুবাদে পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে থাকা দলগুলোর শেষ চারে খেলার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। ইতোমধ্যেই সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে ফেলেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। কোনো অঘটন না ঘটলে ভারত আর নিউজিল্যান্ডেরই দ্বিতীয় এবং তৃতীয় দল হিসেবে শেষ চারে ওঠার সম্ভাবনা বেশি। এখন প্রতিযোগিতা চলছে মূলত চতুর্থ দল নিয়ে। যেখানে ইংল্যান্ড, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ আর শ্রীলংকার মতো দলগুলো নিজেদের স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে লড়াই করছে।

এক আফগানিস্তান ছাড়া বাকি ছয় লড়াইয়ের পাঁচটিতেই ব্যর্থ ডু পেস্নসিসের প্রোটিয়া বাহিনী। আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণের পর বাংলাদেশের বিপক্ষে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় ছিল তাহির, রাবাদাদের। কিন্তু দলীয় নৈপুণ্যে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে সহজেই জয় তুলে নেয় মাশরাফি বাহিনী। নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে অগোছাল ব্যাটিং আর নির্বিষ বোলিংয়ের সামনে সহজ জয় তুলে নেয় টিম ইন্ডিয়া। উইন্ডিজদের সঙ্গে ম্যাচটি বৃষ্টিতে ভেস্তে যাওয়ার পর গত ম্যাচে বাঁচা-মরার লড়াইয়ে নেমে কিউইদের বিপক্ষে আশা জাগিয়ে জয় ছিনিয়ে নিতে ব্যর্থ হয় রাবাদা-তাহিররা। সর্বশেষ পাকিস্তানের বিপক্ষেও ভক্তদের কেবল হতাশাই দিয়েছে ডু পেস্নসিসরা।

এবারের বিশ্বকাপে সবচেয়ে অগোছালো দল ভাবা হয়েছিল শ্রীলংকাকে। আসরের শুরু থেকে একের পর এক ব্যর্থতার কাব্য লিখে সেটি যেন চোখে আঙুল দিয়ে জানান দিচ্ছিলেন তারাও। তবে হঠাৎ করে আসরের অন্যতম ফেবারিট ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এক জয় তাদের খাদের কিনারা থেকে তুলে এনেছে। ৬ ম্যাচ খেলে তাদের পয়েন্ট এখন ৬। বাকি তিন ম্যাচ জিততে পারলে সবাইকে টপকে তারাই সেমিতে চলে যাবে। যে দলে মালিঙ্গার মতো একজন উইকেটশিকারি বোলার আছে আর ম্যাথুসের মতো ধৈর্যশীল ব্যাটসম্যান আছে তারা তো জয়ের স্বপ্ন দেখতেই পারে।

প্রোটিয়াদের বোলিংয়ের প্রধান অস্ত্র ডেল স্টেইনের চোট আর ব্যাটিংয়ের মূল স্তম্ভ এবিডি ভিলিয়ার্সের রহস্যজনকভাবে বিশ্বকাপের আগেই দল থেকে সটকে পড়া আসরের প্রথম ম্যাচ থেকেই মহাবিপদে ফেলেছে ডু পেস্নসিসদের। কাঁধের চোটেই ২০১৬ সালের নভেম্বর থেকে লম্বা সময় মাঠের বাইরে ছিলেন স্টেইন। তবে চোটের সঙ্গে লড়াইয়ে জিতেই ফের মাঠে পা রাখেন ওয়ানডেতে দক্ষিণ আফ্রিকার পঞ্চম সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক।

এর ওপর উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হাশিম আমলার ইনজুরির সঙ্গে লড়াই দলকে আরও অস্বস্তিতে রেখেছে। বিশ্বকাপ শুরুর আগে পেসার কাগিসু রাবাদার বাউন্সারের তোপে ব্যাটসম্যানরা শঙ্কায় থাকলেও বিশ্বকাপে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। প্রোটিয়াদের এই পেসারকে তেমন জ্বলে উঠতে দেখা যায়নি এখন পর্যন্ত। এক ডু পেস্নসিস আর ডি কক রানের চাকা সচল রাখার প্রাণপণ চেষ্টা চালালেও বেশিক্ষণ ক্রিজে স্থায়ী হতে পারেননি কেউই। যার মাশুল হিসেবে টুর্নামেন্ট থেকেই ছিটকে গেল দলটি।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box