প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

আমি নিম্ন স্বাক্ষরকারী ডাঃ কে. এন. এম জাহাঙ্গীর এই মর্মে অবহিত করিতেছি যে, গত ১৭/০৫/ ২০১৯ইং তারিখ কয়েকটি অনলাইন পত্রিকা এবং ২১/০৫/২০১৯ দৈনিক যুগান্তরসহ আরও অন্যান্য কয়েকটি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ ভুল ও অবহেলা জনিত চিকিৎসা শিরোনামে ভৈরব মেডিল্যাব জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াবটিক সেন্টারে আমি ডাঃ কে এন এম জাহাঙ্গীর ও ডাক্তার হাফিজার নামে যে প্রতিবেদন ও সংবাদ প্রকাশ করা হয়, তা একেবারেই চরম মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত, যা একটি চরম মানহানিকর বিষয়।

এখানে উল্লেখ্য যে, প্রকাশিত সংবাদ আমি ও ডাক্তার হাফিজাকে ভুল চিকিৎসার নামে পিত্তথলিতে পাথর আছে বলে উল্লেখ্য করে যে প্রতিবেদন ও সংবাদ প্রকাশ করা হয় তা মোটেও সঠিক নয়, এটি একটি সম্পূর্ণ মিথ্যা সংবাদ এবং একটি অসম্মানজনক অপপ্রচার। আমরা এ ধরনের কোন ভুল চিকিৎসা বা ভুল রিপোর্ট, এমন কি কোন ভুল তথ্য রোগী এবং তার পরিবারকে দেয়নি। এটি একটি অসাধু ও কুচক্রীমহলের যোগসাজশে এর মানহানী করার চেষ্টা ছাড়া আর কিছুই না।

এটি একটি অসম্ভব মিথ্যা সংবাদ। এখানে আরও উল্লেখ্য থাকে যে, আমরা মোছাঃ তানিয়া নামের রোগীর পেট ব্যথা নিয়ে আসলে তানিয়াকে ১৭/০৫/১৯ইং সন্ধ্যা ৭:৩০ ঘটিকায় ভর্তি রেখে সঠিক চিকিৎসা সেবা দানের মাধ্যমে সুস্থ্য করে ১৮/০৫/১৯ইং তারিখ তাকে হাসপাতাল থেকে ছুটি দেই। তানিয়া দুই দিন বাড়িতে সুস্থ্য থাকার পর আবার পুনরায় ব্যথা দেখা দিলে ২০/০৫/১৯ইং তারিখ রাত ৮:৩০মিঃ মেডিল্যাব জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াবেটিক সেন্টারে নিয়ে আসলে, আমরা তার সঠিক চিকিৎসা প্রদানের মাধ্যমে সার্বিক পর্যবেক্ষণ করে উন্নত চিকিৎসার প্রয়াজনে তানিয়ার পরিবারের সম্মতিতে বাজিতপুর জহিরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করি। জহিরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তারগন, চিকিৎসা দিলে তার গর্ভপাত হয়।

গর্ভপাত হওয়ার পর পর্যায়ক্রম রোগীর অবস্থা অবনতি দেখা দিলে জহিরুল ইসলাম মেডিক্যাল কলেজ থেকে কর্তব্যরত ডাক্তারগণ তানিয়াকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে পাঠান। এখানে প্রকাশিত সংবাদ আমাদের চিকিৎসার ক্রুটি বা অবহেলার কথা উল্লেখ্য করে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় যে মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও বিভ্রান্তিকর সংবাদ প্রকাশ করে ডাক্তার এবং মেডিল্যাব জেনারেল হাসপাতাল এন্ড ডায়াবেটিক সেন্টারকে হেয় প্রতিপন্ন করে যে মানহানি করা হয়েছে। আমি ও আমার হাসপাতালের কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

নিবেদক

ডা:কে এন এম জাহাঙ্গীর

আর এম ও

উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স, ভৈরব, কিশোরগঞ্জ।

Facebook Comments Box