গতিপথ পাল্টাচ্ছে তিস্তা

আলোকিত সকাল ডেস্ক

স্কুল, বসতবাড়ি, আবাদি জমি, ব্রিজ ও রংপুর-কালিগঞ্জ সড়ক রক্ষার্থে তিস্তায় একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা প্রয়োজন। তা না হলে গতবারের ন্যায় এবারো রংপুর কালিগঞ্জ সড়কে ভাঙনসহ স্কুল, বসতবাড়ি, আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বন্যার সময় গত ২ বছর থেকে তিস্তার গতিপথ পরিবর্তন হওয়ায় মূল নদীতে তিস্তার পানিপ্রবাহ কমে গিয়েছে। পানিপ্রবাহ কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা সৌর পাওয়ার প্লান্ট এর ভিতর দিয়ে তিস্তার একটি স্যুট চ্যানেল বাগেরহাট এর পূর্ব-দক্ষিণ পাশ দিয়ে তিস্তা সেতুর উত্তর পাশের সংযোগ সড়কের উপর সেরাজুল মার্কেটের কাছে নির্মিত সেতুর নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ইশোরকোল এর ভাটিতে পুনরায় তিস্তার সঙ্গে মিলিত হয়েছে। তিস্তার পানিপ্রবাহ মূল নদীতে নেওয়ার জন্য রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড নদীতে ড্রেজিং করলেও তেমন কাজ হচ্ছে না বলে এলাকাবাসী জানান।

শংকরদহ আবাসন কেন্দ্রের লুত্ফর রহমান, গনিমিয়া বলেন, এবারে ভাঙন রোধে কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা ও শংকরদহ এলাকায় বালির বাঁধ দিলেও যে কোনো মুহূর্তে পানির চাপে ভেঙে যেতে পারে। এবারো ভাঙন ঠেকানো যাবে না।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম গত বছর ১ নভেম্বর স্বাক্ষরিত নির্বাহী প্রকৌশলী, রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড বরাবর লিখিত এক পত্রে এমন আশঙ্কা করে লিখেন। বর্তমানে একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণ করে তা স্থায়ীভাবে রক্ষা করতে গেলে নির্মিত বাঁধকে বেস ধরে মূল নদীর দিকে ৩/৪টি আরসিসি স্পার কিংবা গ্রেয়েন নির্মাণ করতে হবে। তিনি আরো উল্লেখ করে বলেন, কোনো প্রতিরক্ষামূলক কাজ না করলে ঔ স্যুট চ্যানেলটি প্রবল হয়ে পূর্বের ন্যায় তিস্তার মূল স্রোতধারায় পরিণত হবে। তিস্তার পানিপ্রবাহ বেশিরভাগই এই চ্যানেল দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে বিনবিনা, ইচলি, শংকরদহসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক ভাঙনসহ তিস্তা সংযোগ সড়কে ভাঙন দেখা দিবে।

লক্ষ্মীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদী বলেন, তিস্তার উজানে ৫ কিলোমিটার একটি বেড়িবাঁধ হলে ৫০/৬০ হাজার লোক বাঁচবে। তা না হলে ঐসব লোক দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মেহেদি হাসান বলেন, পানির গতিপথ পরিবর্তন বন্ধ করতে বিনবিনা এলাকায় জিও ব্যাগ ও জিও ফিলটার দিয়ে কাজ শুরু করা হয়েছে। আশা করছি গতবারের ন্যায় এবারে সমস্যা হবে না।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box