কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারল না লঙ্কানরা

আলোকিত সকাল ডেস্ক

কার্ডিফে ম্যাচ গড়ানোর আগে থেকেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পরিস্কার ফেবারিট ছিল নিউজিল্যান্ড। কিন্তু তাই বলে এমন বিনা যুদ্ধেই সবটুকু অধিকার তারা ছেড়ে দেবে? আগের দিন আরেক এশিয়ান প্রতিপক্ষ পাকিস্তানের মতো তারাও বিশ্বকাপটা শুরু করল লজ্জার পরাজয় দিয়ে। কিউইদের কাছে ১০ উইকেটে হারা শ্রীলঙ্কা টুর্নামেন্টে এখন কিভাবে নিজেদের সামলে নেয়, সেটিই দেখার বিষয়।

নিষ্প্রাণ, নির্জীব, প্রাণহীন; এই ম্যাচে শ্রীলঙ্কার পারফরম্যান্সকে কিভাবে সংজ্ঞায়িত করা যায়, তা হয়তো খোদ লঙ্কান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহেরও জানা নেই। ব্যাটিংয়ে অসহায় আত্মসমর্পণ, ধারহীন বোলিং সবার মনেই প্রশ্ন জাগায়, ‘এ কেমন শ্রীলঙ্কা?’।

আগের দিন ১০৫ রানের সংগ্রহ নিয়েও লড়াই করেছেন পাকিস্তানের মোহাম্মদ আমির। তিন উইকেট তুলে নিয়ে বুঝিয়েছেন, ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে সম্মানজনক একটি সংগ্রহ পেলে বাকি কাজ হয়তো তিনিই করতে পারতেন। কিন্তু শ্রীলঙ্কা দলে তেমন কেউও যে নেই!

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে যেন মুড়ি মুড়কির মতো ভেঙে পড়ল লঙ্কান ব্যাটিং লাইনআপ। ইনিংসের শুরুতে লাহিরু থিরিমান্নের সঙ্গে লঙ্কান ব্যাটিংয়ের উদ্বোধন করতে নেমেছিলেন অধিনায়ক দিমুথ করুণারত্নে। একে একে দলের বাকি দশ ব্যাটসম্যানের আসা-যাওয়া দেখলেন ক্রিজে দাঁড়িয়েই। নড়বড়ে লঙ্কান ব্যাটিং লাইনআপে করুণারত্নে যেন ‘ওয়ান ম্যান আর্মি’! তার ৮৪ বলে ৫২ রানের ইনিংসাটাতে ভর করেই শেষ পর্যন্ত একশ’ পেরোতে পেরেছে হাথুরুসিংহের শিষ্যরা। ২৯ ওভার ২ বল ব্যাট করে ১৩৬ রানে হয়েছে অলআউট।

কার্ডিফের কভারে ঢাকা পিচে টিম সাউদির অনুপস্থিতিতে আগুন ধরানোর প্রধান দায়িত্বটা নেন পেসার ম্যাট হেনরি। বিশ্বকাপের দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে এই হেনরিই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৯ ওভারে দিয়েছিলেন ১০৭ রান। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে কিছু বুঝে ওঠার আগেই লাহিরু থিরিমান্নেকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন হেনরি। এরপর কুশাল পেরেরাকে নিয়ে অধিনায়ক করুণারত্নে জুটি গড়ার চেষ্টা করলেও ম্যাট হেনরিই তা হতে দেন নি। পর পর দুই বলে দুই ‘কুশল’ – কুশল পেরেরা ও কুশল মেন্ডিসকে ফিরিয়ে দেন হেনরি। এরপর চলে শুধুই লঙ্কানদের আসা যাওয়ার খেলা। ০ রানে আউট হন অভিজ্ঞ অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। দলীয় ৬০ রানেই সাজঘরে ফেরেন ৬ লঙ্কান ব্যাটসম্যান।

মিডল অর্ডারে থিসারা পেরেরাকে নিয়ে ৫২ রানের আরেকটা চেষ্টা করেছিলেন করুণারত্নে। তবে পেরেরার অধৈর্য ব্যাটিংয়ে সেই জুটিও আর বেশিদূর এগোয়নি। সবশেষে ‘দ্য লোন সারভাইভার’ করুনারত্নের শেষ সঙ্গী হিসেবে লকি ফার্গুসনের বলে বোল্ড হয়ে যান লাসিথ মালিঙ্গা।

কিউইদের হয়ে ৬ ওভার ২ বলে ২২ রান খরচায় ৩ উইকেট নিয়েছেন লকি ফার্গুসন, ৭ ওভারে ২৯ রান দিয়ে ৩টি উইকেট নিয়েছেন ম্যাট হেনরিও। বাকি বোলারদের মধ্যে ট্রেন্ট বোল্ট, গ্র্যান্ডহোম, জিমি নিশাম ও স্যান্টনার নিয়েছেন ১টি করে উইকেট।

১৩৭ রানের টার্গেটে কার্ডিফ দেখতে পেল কেবল গাপটিল-মুনরো শো। আর তাতেই কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৬ ওভারেই জয়ের বন্দরে পৌছায় কিউইরা। গাপটিল ৫১ বলে ৭৩ ও কলিন মুনরো করেছেন ৪৭ বলে ৫৮ রান।

শ্রীলঙ্কার সবচেয়ে অভিজ্ঞ বোলার লাসিথ মালিঙ্গাও ছিলেন নিষ্প্রভ। ৫ ওভার বল করে রান দিয়েছেন ৪৬, উইকেট পাওয়ার প্রশ্ন তো আসছেই না!

মঙ্গলবার (৪ জুন) টুর্নামেন্টে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হবে শ্রীলঙ্কা। বুধবার (৫ জুন) নিউজিল্যান্ডের পরবর্তী প্রতিপক্ষ বাংলাদেশ।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box