এবার রণপ্রস্তুতির পালা

আলোকিত সকাল ডেস্ক

সেই কবে বার্মিংহামে পাড়ি জমিয়েছে টিম বাংলাদেশ। কিন্তু টিম হোটেল ‘হায়াত রিজেন্সি’ শনিবারই প্রথম গোটা টাইগার শিবিরকে একসঙ্গে দেখেছে। ২৪ জুন আফগানিস্তানকে হারানোর পরদিনই সাউদাম্পটন ছাড়ে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। কিন্তু বার্মিংহামগামী বাসের বেশ কয়েকটি সিট ছিল ফাঁকা। আগের রাতেই সপরিবারে লন্ডন চলে গিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান, মোহাম্মদ মিঠুন গিয়েছিলেন ব্রিস্টলে ভাইয়ের বাসায়। তামিম ইকবাল আর মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনও ‘ছুটি’র বার্তা পেয়ে বেরিয়ে পড়েছিলেন আগেভাগে। টিম বাসে করে যার বার্মিংহামে গিয়েছিলেন, শুক্রবার পর্যন্ত তাদের বেশিরভাগই ছিলেন টিম হোটেলের বাইরে। যে যেমন চেয়েছেন, তেমন করেই সময় কাটিয়েছেন।

সে সময়টা ফুরিয়েছে শনিবার রাতে। ‘পরিজায়ী পাখী’ হয়ে ঘুরাঘুরির পালা শেষ। গা থেকে আয়েসি ভাবটা ঝেড়ে ফেলার পালা এবার। আজ থেকেই টাইগারদের নেমে পড়তে হবে রণপ্রস্তুতিতে। মঙ্গলবারই পরবর্তী ম্যাচে পরাক্রমশালী ভারতের মুখোমুখি হতে হবে। ম্যাচটা বাংলাদেশের জন্য বাঁচা-মরার। সেমিফাইনালে খেলার আশা টিকিয়ে রাখতে এ ম্যাচে জয়টা অত্যাবশ্যক হয়ে পড়েছে। কিন্তু সবশেষ চারটি ওয়ানডেতে এই ভারত কেবল পরাজয়-যাতনাই বরাদ্দ রেখেছিল টাইগারদের জন্য। এ বিশ্বকাপের আগে যে আনুষ্ঠানিক প্রস্তুতি ম্যাচটি খেলার সুযোগ পেয়েছে মাশরাফি ব্রিগেড, সেটাকেও পরাজয়ের বৃত্ত ভাঙা যায়নি। কোহলি-ধোনিদের ভারত রীতিমতো দুর্বোধ্য এক ধাঁধা হয়ে উঠেছে টাইগারদের জন্য।

ধাঁধাটাকে বোধগম্য করতে এবং তার উত্তর মেলানোর অভিপ্রায়েই শুরু হচ্ছে বাংলাদেশের এবারের প্রস্তুতি। তবে প্রস্তুতিটা আপাতত ম্যাচ ভেন্যু এজবাস্টনে হচ্ছে না। কারণ, এ মাঠেই আজ মহা-গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মুখোমুখি হবে ভারত আর স্বাগতিক ইংল্যান্ড। ম্যাচটি ইংল্যান্ডের জন্য টিকে থাকার, অপরদিকে ‘অজেয়’ ভারতের সেমিফাইনাল নিশ্চিত করার। আজ জিতলে শেষ চারে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গী হবে কোহলির দল, প্রায় শেষ হয়ে যাবে ইংল্যান্ডের সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন। তাতে অবশ্য বাংলাদেশের সেমির স্বপ্ন উজ্জ্বল হবে। আজ হারলে ইংল্যান্ডের পয়েন্ট হবে সর্বোচ্চ ১০, শেষ দুই ম্যাচ জিতলে বাংলাদেশের হবে ১১। টাইগাররা কায়মনে আজ তাই ভারতেরই জয় প্রত্যাশা করছে।

এই ভেন্যুতে ভারতের অতীত বেশ উজ্জ্বল। সেটা যদি আজ টাইগারদের ‘আশার আলো’ দেখায়, আলোর নিচে থাকা অন্ধকারটাও দেখায় আরও পরিষ্কার করে। ভারতকে তো এ ভেন্যুতেই মোকাবেলা করতে হবে তাদের। একে কোহলি-ধোনিদের দল এজবাস্টনে ভালো খেলে, তারপর এবার উইকেট আর কন্ডিশনের সঙ্গেও আগাম পরিচয় হয়ে যাচ্ছে তাদের। পরবর্তী ম্যাচে কিছুটা বাড়তি সুবিধা তাই দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা পাচ্ছেই। শুক্রবারই বার্মিংহামে পাড়ি জমিয়েছে কোহলি অ্যান্ড কোং। তারাও উঠেছে হায়াত রিজেন্সিতে। অর্থাৎ বাংলাদেশ আর ভারতের ক্রিকেটাররা এখন একই হোটেলের বাসিন্দা! ইতোমধ্যে দুই শিবিরের অনেকের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ হয়ে গেছে।

ভুবনেশ্বর কুমার আর বিজয় শঙ্করের সঙ্গে কি সাক্ষাৎ হয়েছে শ্রীনিবাস চন্দ্রশেখরের? সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে এবারের আইপিএলে খেলেছেন ভুবনেশ্বর আর শঙ্কর। ওই দলের কম্পিউটার পারফরম্যান্স অ্যানালিস্ট ছিলেন শ্রীনিবাস। তাই তাদের মধ্যে একটু বেশিই আলাপ-পরিচয় আছে। সেই শ্রীনিবাস এখন বাংলাদেশ দলের কম্পিউটার পারফরম্যান্স অ্যানালিস্ট। বাড়ি তার ভারতে। তিনিই এখন টাইগার শিবিরে বসে ভারত-বধের ছক কষছেন। কোন বোলার কখন কাকে বল করবেন, কার জন্য কীভাবে ফিল্ডিং সাজালে ভালো ফল পাওয়া যাবে, টাইগার ব্যাটসম্যানরা বুমরাহ-শামি-চাহালদের কীভাবে মোকাবেলা করবেন, সবকিছুরই রোডম্যাপ তৈরি করে ফেলেছেন শ্রীনিবাস।

আজ থেকে অনুশীলনে সেটাই আয়ত্ত করবেন টাইগার ক্রিকেটাররা। লাগাতার ম্যাচ খেলে যাওয়ায় যে একঘেয়েমি ভাব চলে এসেছিল তাদের মাঝে, পাঁচ দিনের লম্বা ছুটি সেটা দূর করে দিয়েছে। অর্থাৎ আজ ফুরফুরে মেজাজেই অনুশীলনে নামতে যাচ্ছে মাশরাফি ব্রিগেড। আফগানিস্তানকে উড়িয়ে দেওয়ার পর তাদের আত্মবিশ্বাসের ঝুলিটা তো এমনিতেই পরিপূর্ণ হয়ে আছে। ওই ম্যাচটি অবশ্য একটা দুশ্চিন্তাও রেখে গেছেÑ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের কাফ মাসলের ইনজুরি। তিন-চার দিন তো স্ক্র্যাচে ভর দিয়ে চলতে হয়েছে এ মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যানকে। শুক্রবার অবশ্য স্ক্র্যাচ ছাড়াই হাঁটা-চলা করতে দেখা গেছে তাকে। তবে এখনও পুরোপুরি ফিট নন তিনি।

ভারত ম্যাচে মাহমুদউল্লাহর খেলা না খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তাটা তাই এখনও বলবৎ। যদিও টিম ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন জানিয়েছেন, ধীরে ধীরে সেড়ে উঠছেন মাহমুদউল্লাহ। তবে তার চোটের আসল অবস্থাটা বোঝা যাবে অনুশীলন শুরু হওয়ার পর। টাইগার টিম ম্যানেজমেন্ট কিন্তু ভারত ম্যাচে মাহমুদউল্লাহকে পাওয়ার বিষয়ে আত্মবিশ^াসী। আত্মবিশ^াসী তিনি নিজেও। এ ধরনের চোট কাটিয়ে উঠতে সপ্তাহখানেকের বেশি সময় লাগে, সেটা জানা থাকার পরও মাহমুদউল্লাহ বলে রেখেছেন, ‘যেভাবেই হোক, ফিট হয়ে ভারতের বিপক্ষে আমি খেলব।’

ভারত ম্যাচটা খেলার জন্যই মাহমুদউল্লাহর এমন চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞা। ভারতকে হারিয়ে সেমিফাইনালের পথে এগিয়ে যাওয়ার জন্য দলের সব খেলোয়াড়ের প্রতিজ্ঞাটাও হতে হবে এমন চোয়ালবন্ধ।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box