আখাউড়া আজমপুর রেলস্টেশনে বেপরোয়া টিকিট কালোবাজারী!

মো:সাইফুল ইসলাম আখাউড়া

আখাউড়া আজমপুর রেলওয়ে স্টেশনে টিকিট কালোবাজারী ২ টি টিকিটের দাম ২ হাজার টাকা চাওয়ার প্রতিবাদ করায় লাঞ্চিত হয়েছে আখাউড়া রেলওয়ে স্কুলের শতবর্ষ উদযাপন কমিটির সমন্বয়ক মশিউর রহমান বাপ্পি।এসময় তার মুঠোফোন টি ও কেড়ে নিয়ে ভেঙ্গে ফেলেছে কালোবাজারী মোঃ মুসা মিয়া।

মোঃ মশিউর রহমান বাপ্পি ঘটনার বিবরনে জানান, আমি সড়ক দূর্ঘটনায় বিগত ৬ দিন যাবৎ অসুস্থ। আমার পায়ের এমআরআই এর জন্য ঢাকা যেতে আদ্য সকাল আনুমানিক ১১ ঘটিকায় ১২ তারিখের টিকেটের জন্য আজমপুর স্টেশন মাস্টার মোঃ শাখাউয়াত হোসেনের কাছে গেলে বলেন কাউন্টারে ঢাকা যাওয়ার টিকেট নাই। তিনি পথ বাতিয়ে দেন আজমপুরের টিকেট কাল বাজারি মুসা মিয়া কথা যিনি এক সময়ের অন্যতম মাদক ব্যবসায়ি, রামধননগরের টিকেট কালবাজারি হানিফ এক সময়ের এলাকার অন্যতম মাদক ব্যবসায়ী অথবা রামধননগরের টিকেট কালবাজারি একসময়ের এলাকার অন্যতম মাধক ব্যবসায়ি বাবুল মিয়ার কাছে গিয়ে টাকা বাড়িয়ে দিলে টিকেট মিলবে।

উনার কথা মত মুসা মিয়ার কাছি অামার অসুস্থতার কথা বলে টিকেট চাইলে ২ টি টিকেট ২০০০ টাকা দাবি করলে আমি ৫০০টাকা দিতে রাজি হই এবং উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্বপন সাথে কথা বলার জন্য আমার ফোন থেকে কল লাগিয়ে দিলে মুসা মিয়া চেয়ারম্যানের সাথে কথা বলার সময় নাই বলে আমাকে ধাক্কা মারে এবং আমার ফোনটি ছুড়ে ভেঙ্গে ফেলে। মশিউর রহমান বাপ্পি আরো বলেন, এ বিষয়ে যথাযথা কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি ও দৃষ্টান্তমুলক বিচার দাবি করছি। তাছাড়া শীঘ্রই আজমপুর স্টেশনের টিকেট কালবাজারিদে দৌরাত্ম বন্ধের দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আখাউড়া রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব শ্যামল কুমার জানালেন, আজমপুরে আগের মত কালো বাজারী নেই কারন আমরা বেশ কয়েকজন কালোবাজারি কে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠিয়েছি, যদি নতুন করে কেউ এই অপকর্ম করার চেষ্টা করে তবে অবশ্যই আমরা ব্যাবস্থা নিব, তিনি আরো বলেন, স্টেশন মাস্টার ও কালোবাজারির সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ পেয়েছি আমরা তাকেও সতর্ক করেছি।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box