আমলকির কেজি ১০০০ টাকা

মুখের রুচি বাড়াতে ভিটামিন ‘সি’-তে ভরপুর আমলকির জুড়ি নেই। লিভার, জন্ডিস, পেটের পীড়া, সর্দি, কাশি ও রক্তশূন্যতায় এ ফল বেশ উপকারী। এছাড়া চুলের গোড়া শক্ত হওয়া, চুল পড়া এবং অল্প বয়সে চুল পাকা বন্ধ করতেও আমলকি ব্যবহার হয়।

নানা গুণে ভরপুর হওয়ায় আমলকির কদর সব শ্রেণি পেশার মানুষের কাছে রয়েছে। ফলে এর প্রতি এক ধরনের বাড়তি চাহিদা রয়েছে নারী-পুরুষ সবার মধ্যেই। মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপে সেই চাহিদা যেন বেড়ে গেছে কয়েকগুণ। ফলে কোথাও কোথাও আমলকির কেজি ১ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পুষ্টি বিজ্ঞানীদের মতে, আমলকিতে পেয়ারার চেয়ে ১০ গুণ ও কাগজি লেবুর চেয়ে ৩ গুণ বেশি ভিটামিন ‘সি’ রয়েছে। এছাড়া আমলকিতে কমলার চেয়ে ১৫-২০ গুণ, আপেলের চেয়ে ১২০ গুণ, আমের চেয়ে ২৪ গুণ এবং কলার চেয়ে ৬০ গুণ বেশি ভিটামিন ‘সি’ রয়েছে। একজন বয়স্ক লোকের প্রতিদিন ৩০ মিলিগ্রাম ভিটামিন ‘সি’ দরকার। এ পরিমাণ ভিটামিন ‘সি’ দিনে দুটি আমলকি খেলেই এসে যায়।

এদিকে মহামারি করোনার প্রেক্ষিতে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য ভিটামিন সিসমৃদ্ধ ফল খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ভিটামিন সি ক্ষতিকর জীবাণুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে দৃঢ় করে। এছাড়া ত্বকে যে অক্সিডেন্ট স্ক্যাভেনজিং প্রক্রিয়া আছে, তাকেও সাহায্য করে ভিটামিন সি। ফলে সম্ভাব্য জারণ প্রক্রিয়ার চাপ থেকে কোষ কিংবা টিস্যু রক্ষা পায়।

ভিটামিন সি ফাগোসাইটিক কোষগুলিতে জমে থাকা নিউট্রোফিলস এবং কেমোট্যাক্সিস, ফাগোসাইটোসিস, প্রতিক্রিয়াশীল অক্সিজেন প্রজাতির উৎপাদন বাড়াতে সাহায্য করে। এমনকি অণুজীবের ধ্বংস হারও বাড়িয়ে দেয়। ম্যাক্রোফেজ দ্বারা সংক্রমণের স্থান থেকে অ্যাপোপটোসিস প্রক্রিয়ার মাধ্যমে মৃত কোষ এবং ব্যবহৃত নিউট্রোফিলগুলিকে সরিয়ে ফেলে। ফলে নেক্রোসিস এবং সম্ভাব্য ক্ষতিগ্রস্ত টিস্যুর পরিমাণ কমে যায়।

সম্প্রতি আমেরিকান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন জার্নাল -এ একটি প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। এআরডিএস-এ আক্রান্ত ১৬৭ জন রোগীর ওপর করা এক গবেষণার বিশ্লেষণ করা হয়েছে সেই প্রবন্ধে। ওই গবেষণায় রেগীদের দিনপ্রতি ১৫ গ্রাম ইন্ট্রাভেনাস (আইভ) ভিটামিন সি দেয়া হয়েছে পর পর চারদিন। ফলে মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমে গেছে।

Facebook Comments Box