ঈদের নামাজ ঘরে একা পড়া যাবে জানালেন মিজানুর রহমান আযহারী

204

ঈদের নামাজ ঘরে একা পড়া যাবে জানালেন মিজানুর রহমান আযহারী

বদরুল আলম, নিউজ ডেস্ক, ৭১ কন্ঠ ডট কমঃ
ড. মিজানুর রহমান আযহারী তার লাইভে এসে জানালেন ঈদুল ফিতরের নামাজ ঘরে একা পড়া যাবে। করোনা লকডাউনে সকলের নিরাপত্তা ও গনজামায়াত নিষিদ্ধ থাকায় সারা বিস্ব বাসী বিপদের মধ্যে রয়েছেন, তিনি এই বিপদ থেকে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেন এবং বলেন ঈদের নামাজ একা ঘরে পড়া যাবে। সেই ক্ষেত্রে কোনো খোতবা দিতে হবেনা এবং আযান দেয়ার ও প্রয়োজন নেই। তিনি বলেন ঈদের নামাজে ৬ তাকবীর ১১ তাকবীর ও ১২ তাকবীর দেয়ার কথা বলা আছে। শাফী মাযহাবে ১২ তাকবীর দেয়া হয়, ১ম রাকাতে ৭ তাকবীর ও দ্বিতীয় রাকাতে ৫ তাকবীর এবং হম্বলী ও মালেকী মাযহাবে ১১ তাকবীর দেয়া হয় ১ম রাকাতে ৬ তাকবীর ও দ্বিতীয় রাকাতে ৫ তাকবীর। তিনি বলেন বাংলাদেশের মানুষ বেশিরভাগই হানাফী মাযহাবের অনুশারী তাই হানাফী মাযহাবের নিয়ম অনুযায়ী ৬ তাকবীরের সাথে ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করা হয়। ৬ তাকবীরের সাথে নামাজ পড়া অসংখ্য সহিহ হাদিস দ্বারা প্রমানিত, তাই ৬ তাকবীরের সাথে নামাজ আদায় করার পরামর্শ করছি। যেহেতু তাকবীরের সংখ্যা কম আছে সেহেতু হিসাব করতেও সুবিধা হবে।

৬ তাকবীরের সাথে নামাজ আদায়ের নিয়মঃ

ড. মিজানুর রহমান আযহারী ৬ তাকবীরের সাথে নামাজ আদায়ের নিয়ম সম্মন্ধে বলেন, একা নামাজ পড়লে কোনো আযান দেয়া লাগবেনা, কোনো ইকামত দিতে হবেনা এবং খোতবাও দিতে হবেনা।

১ম রাকাতে তাকবীরে তাহরীমা আল্লাহু আকবার বলে নিয়ত বাঁধার পর সানাহ পড়ে ৩ বার জোরে জোরে তাকবীর দিতে হবে। তারপর সুরা ফাতেহা পড়ে অন্য একটি সুরা পড়ে রুকুতে যেতে হবে। যথারিতি নামাজের মতো ১ম রুকু সেজদা শেষ করে দ্বিতীয় রাকাতে এসে দাড়িয়ে ১মে সুরা ফাতিহার পর অন্য একটি সুরা পড়ে নিতে হবে। তারপর জোরে জোরে তিনবার তাকবীর দিয়ে ৪র্থ তাকবীরের পর রুকুতে যেতে হবে। তারপর সাধারন নামাজের মতো সেজদা করে শেষ বৈঠকে তাশাহুদ, দুরুদ ও দোয়া মাসুরা পড়ে সালাম ফিরিয়ে নামাজ শেষ করতে হবে। নামাজ শেষে কোনো খোতবা দেয়ার প্রয়োজন নেই।

See live video Mizanur Rahaman Azhari click here

ঈদের নামাজ ঘরে একা পড়া যাবে জানালেন মিজানুর রহমান আযহারী

ঈদের নামাজ ঘরে একা পড়া যাবে জানালেন মিজানুর রহমান আযহারী
Facebook Comments