হাথুরু চাইলেই কোচের পদে বিবেচিত হবেন : পাপন

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বিশ্বকাপের পর রদবদলের জোয়ারে ভাসছে বাংলাদেশ ক্রিকেট। প্রধান কোচ স্টিভ রোডসের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বিদায় দেয়া হয়েছে দুই বোলিং কোচ কোর্টনী ওয়ালস ও সুনীল যোশীকেও। বিশ্বকাপে টাইগাররা আশানুরূপ পারফরম্যান্স করতে না পারাই বোর্ডের এইসব সিদ্ধান্ত।

এখন প্রক্রিয়া চলছে নতুন কোচ নিয়োগের। কিছুদিন আগে কোচ নিয়োগের জন্য বিজ্ঞাপনও দিয়েছিল বিসিবি। তাতে অবশ্য সারা পায়নি বোর্ড। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কথায় এখন একটি বিষয় পরিস্কার, জাতীয় দলের নতুন প্রধান কোচ যেই হতে যাচ্ছেন না কেন, বড় মাপের কেউ-ই আসতে চলেছে টাইগারদের দায়িত্ব বুঝে নিতে।

আজ ২৪ জুলাই (বুধবার) বিকেলে ধানমণ্ডির বেক্সিমকোর কার্যালয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে করেন পাপন। সেখানে গণমাধ্যমকে নতুন কোচের ব্যাপারে বিসিবি বস বলেন, ‘কোচ নিয়োগ দেয়ার আনুষ্ঠানিকতা তো আছেই। সাধারণত দেখা যায়, আমরা যদি নামীদামী কোনো কোচ আনতে চাই তবে তারা আবেদন করেন না। তাদের এজেন্ট থাকে এবং তাদের মাধ্যমে কথা বলতে হয়। আবেদন জমা হয়েছে আবার আমরাও যোগাযোগ করছি।’

‘নতুন কোচ নিয়োগের ক্ষেত্রে আমাদের প্রক্রিয়া চলছে। কোচ তো আর একজন না। হেড কোচ, ফাস্ট বোলিং কোচ, ফিজিও-ও আছে। আমরা এবার ঠাণ্ডা মাথায় কোচ নিতে চাচ্ছি। বিশ্বকাপ শেষ হলেও এখনও কয়েকজনের (বিদেশি কোচ) সঙ্গে আমাদের চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়নি। কয়েকজন আটকে আছে। তবে কথাবার্তা চলছে অনেকের সঙ্গেই। ওখান থেকে নিজেরা পরখ করে করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবো আমরা’- বলেন পাপন।

এদিকে পুনরায় চন্ডিকা হাথুরুসিংহেকে নিয়োগ দেয়া হবে কি-না, এ প্রশ্নের উত্তরে বিসিবি বস জানান, ‘এখন তো শ্রীলংকা সিরিজ চলছে। হাথুরুসিংহের সঙ্গে এখন কথা বলা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এই সিরিজের পর যদি তার সময় থাকে আর সে যদি আসতে চায় তাহলে সেও কোচের দায়িত্ব পাওয়ার জন্য একজন প্রতিদ্বন্দ্বী হবে। একমাত্র হাথুরু যদি চায়, বাংলাদেশের কোচ হতে আগ্রহ প্রকাশ করেন, তবেই তাকে আমরা বিবেচনায় নেবো।’

আস/এসআইসু

Facebook Comments