সড়ক ও নদী থেকে ২ নবজাতকের লাশ উদ্ধার

আলোকিত সকাল ডেস্ক

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে সড়কের পাশ থেকে এক নবজাতকের লাশ পাওয়া গেছে। এদিকে, বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে পানগুছি নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় এক নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৩০ মে) সকালে নবজাতক দুইটির লাশ উদ্ধার করা হয়।

টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে এক নবজাতকের লাশ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার (৩০ মে) সকালে এলেঙ্গা-ভূঞাপুর সড়কের তাঁতিহারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে শিশুটির মরদেহ দেখতে পান এলাকাবাসী। পরে তারা স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও থানা পুলিশকে খবর দেন। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত শিশুটির পরিচয় পাওয়া যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে সড়কের পাশেই শিশুটির লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। বুধবার দিবাগত রাতের কোন এক সময় কে বা কারা শিশুটিকে ফেলে রেখে চলে যায়। তাদের ধারণা জীবিত অবস্থায় ফেলে যাওয়ার পর নবজাতকের মৃত্যু হয়।

উপজেলার নারান্দিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শুকুর মামুদ বলেন, সড়কের ধারে একটি শিশুর লাশ পড়ে আছে এমন খবর পেয়ে আমি সেখানে ছুটে যাই। শিশুটি দেখতে ফুটফুটে। পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছি।

এ বিষয়ে কালিহাতী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর মোশারফ হোসেন বলেন, খবর পাওয়ার পর পুলিশ লাশের কাছে গিয়েছে। নবজাতকের কোন পরিচয় না পাওয়া গেলে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হবে।

বাগেরহাট
বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে পানগুছি নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় এক নবজাতকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৩০ মে) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে থানা পুলিশ পুরনো থানা ভবনের সামনে নদী থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে। মরদেহটি সদ্য ভূমিস্ট অজ্ঞাত পরিচয়ের কোন নবজাতকের। সামাজিক নিরাপত্তা ও লোকলজ্জা থেকে বাঁচতে ৩-৪ দিন পূর্বে ওই নবজাতককে কেউ হত্যা করে নদীতে ফেলে দিয়েছে বলে ধারণা করছেন স্থানীয়রা।

এ বিষয়ে মোরেলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কেএম আজিজুল ইসলাম বলেন, অপরিপক্ষ এক শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। তার লাশের পোস্টমর্টেম করানো হবে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়েছে।

ওসি আজিজুল ইসলাম আরো বলেন, ধারণা করা হচ্ছে অবৈধ গর্ভপাত ঘটিয়ে বা শিশুটিকে জোরপূর্বক দুনিয়ায় এনে যে কেউ নদীতে ফেলে দিয়েছে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments