সিরাজগঞ্জে ১৪ মাসে বাল্যবিবাহ বন্ধের শতক গড়লেন এসিল্যান্ড আনিসুর রহমান

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

যমুনা নদী বিধৌত সিরাজগঞ্জ জেলা । এজেলার নয়টি উপজেলা নিয়ে গঠিত এই জেলার অন্যতম উপজেলা সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা। সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে গত বছরের শেষের দিকে যোগদান করেন আনিসুর রহমান । এর আগে তিনি একই জেলার চৌহালিতে সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভারপ্রাপ্ত ইউএনও হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দুই উপজেলায় ১৪ মাসের দায়িত্ব পালনকালে ভূমি সেবা প্রদানের পাশাপাশি তিনি গড়েছেন অনন্য এক নজির। সিরাজগঞ্জ জেলায় ১৪ মাসে তিনি বন্ধ করেছেন ১০০টি বাল্যবিবাহ। এর মধ্যে বাল্যবিবাহ বন্ধ করা তিনটি কন্যা শিশুর লেখাপড়ার দায়িত্ব তুলে নিয়েছেন নিজ কাঁধে। জনবান্ধব এ কর্মকর্তার অনুকরণীয় এ উদ্যোগকে স্বীকৃতি দিয়ে বিগত ২৩ জুন পাবলিক সার্ভিস ডে’তে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করেছে সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসন। সিরাজগঞ্জ জেলার তৎকালীন জেলা প্রশাসক (যুগ্মসচিব) কামরুন নাহার সিদ্দীকা তার হাতে তুলে দিয়েছেন এ সম্মাননা স্মারক।

বাগবাটি,রতনকান্দি,বহুলী,শিয়ালকোল, খোকশাবাড়ি,ছোনাগাছা, মেছড়া, কাওয়াখোলা, কালিয়া হরিপুর, সয়দাবাদ এই দশটি ইউনিয়ন নিয়ে সদর উপজেলার বিস্তৃতি। তথ্য বাতায়ন সূত্র মতে, ৫ লাখ ৭৮ হাজার ৫শ’৮৩ জন নাগরিকের বসবাস এ উপজেলায়। গত বছরের ৩০ অক্টোবর আনিসুর রহমান চৌহালি থেকে সদর উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে যোগদান করেন। সরকারি দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে তিনি অব্যাহত রাখেন বাল্য বিবাহ বন্ধের অভিযান। ‘যেখানে বাল্য বিবাহ সেখানেই প্রতিরোধ’ মন্ত্রে তিনি শুরু করেন সদর উপজেলাকে বাল্যবিবাহ মুক্ত উপজেলা গড়ার অভিযান। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার বাইরেও তিনি চালিয়ে যান সামাজিক এক আন্দোলন। বিভিন্ন ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধি আর জনসাধারণকের সম্পৃক্ত করে তিনি গড়ে তোলেন এক সামাজিক নিরাপত্তা বলয়। জনসম্পৃক্ততা বাড়ানোর কারনে গভীর রাতে অতি গোপনে কোথাও বাল্যবিবাহের আয়োজন হলেও তিনি পেয়ে যান সংবাদ। স্বেচ্ছাসেবীদের নিয়ে তিনি গড়ে তুলেছেন মিসকল এলার্ট পদ্ধতি। তার নাম্বারে কোন মিসকল এলেই তিনি বুঝতে পারেন ঠিক কোথাও বাল্যবিবাহের আয়োজন চলছে। তিনি কলব্যাক করে ঘটনার বিস্তারিত জেনে নেন আর শুরু করেন বন্ধের অভিযান। সামাজিক এ আন্দোলনে যেন কারো অর্থ ব্যয় না হয় সে কারনে মিসকল সিস্টেম বলে তিনি জানান। এর বাইরে প্রত্যেক ইউনিয়নের তার নিজস্ব কিছু বিশ্বস্ত স্বেচ্ছাসেবী রয়েছে যারা স্বউদ্যোগে বাল্য বিবাহ বন্ধে ভূমিকা রেখে চলেছেন। তিনি এই স্বেচ্ছাসেবীদের সমন্বয়কারী হিসেবে কাজ করেন এবং মাস শেষে তাদের উদ্বুদ্ধ করার জন্য তাদের মুঠোফোনে সামান্য কিছু ব্যালান্স ট্রান্সফার করেন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে বাবা -মাদের বাল্যবিবাহের কুফল সম্পর্কে সচেতন করার জন্য উঠান বৈঠক করেন। বিভিন্ন স্কুল কলেজে ছেলে মেয়েদের বাল্যবিবাহের কুফল সম্পর্কে সচেতন করার পাশাপাশি বাল্যবিবাহ বন্ধে কার্যকর ভূমিকা রাখতে অনুরোধ করেন এবং উপজেলা প্রশাসন এর মোবাইল নম্বর সরবরাহ করেন বাল্যবিবাহ, ইভটিজিং, মাদক ও জুয়া সম্পর্কে তথ্য দেয়ার জন্য। উদ্দেশ্য একটাই সবার সম্মিলিত প্রয়াসে দূর হবে বাল্যবিবাহের মতো এক অভিশাপ।

সদর উপজেলা প্রশাসন সূত্র মতে, ৩০ অক্টোবর তিনি যোগদান করলেও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সহকারী রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করায় নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে কোন অভিযান পরিচালনা করতে পারেননি। এই দু মাস বাদে এই উপজেলায় চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে ২টি, ফেব্রুয়ারি মাসে ২টি, মার্চ মাসে ১০টি, এপ্রিল মাসে ২২টি, মে মাসে ৮টি, জুন মাসে ১৫টি এবং চলতি জুলাই মাসে ৭টি বাল্য বিবাহ অভিযান পরিচালনা করে বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হয়েছে। এর মধ্যে পৌরসভায় ১৩টি, খোকশাবাড়ীতে ৩টি,সয়দাবাদে ১১টি, কালিয়া হরিপুরে ১১টি, বাগবাটিতে ৯টি, রতনকান্দিতে ১০টি, বহুলীতে ৫টি, শিয়ালকোলে ২টি, ছোনগাছাতে ১টি এবং কাওয়াখোলা ইউনিয়নে ১টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করা হয়েছে। এই উপজেলায় বাল্যবিবাহ বন্ধের পাশাপাশি জরিমানা আদায় করা হয়েছে ৭ লাখ ৪৪ হাজার টাকা ও প্রযোজ্যক্ষেত্রে বর এবং কনের বাবার মুচলেকা। বাল্য বিবাহের কবলে পড়া ৬৬ জনই ছিলো শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে তৃতীয় শ্রেণির ১ জন,পঞ্চম শ্রেণির ৫ জন, ষষ্ঠ শ্রেণির ৩ জন,সপ্তম শ্রেণির ৪ জন, অষ্টম শ্রেণির ২৫ জন, নবম শ্রেণির ১৫ জন এবং দশম শ্রেণির ১৩ জন শিক্ষার্থী।
এর আগে ২০১৮ সালের এপ্রিল মাস থেকে অক্টোবর মাস পর্যন্ত চৌহালী উপজেলায় ভারপ্রাপ্ত ইউএনও হিসেবে কর্মকালীন সময়ে ৩৪ টি বাল্যবিবাহ বন্ধে সফলতার সাথে অভিযান পরিচালনা করেন। সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় সাড়ে ৬ মাসে ৬৬ টি এবং চৌহালী উপজেলায় ৭ মাসে ৩৪ টি সহ সর্বমোট ১০০ টি বাল্যবিবাহ বন্ধ করে দৃষ্টান্ত তৈরী করেছেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আনিসুর রহমান ।

বিশিষ্টজনদের প্রত্যাশা এসিল্যান্ড আনিসুর রহমানের মতো যদি সবাই যার যার অবস্থান থেকে এগিয়ে আসেন তবে বাল্যবিবাহের অভিশাপমুক্ত হবে লাখো শহীদের রক্তে রাঙা লাল সবুজের প্রিয় আমাদের এ মাতৃভূমি।

আলোকিত সকাল/এসআইসু

Facebook Comments