সালনায় ধর্ষণে স্কুল ছাত্রী ৭ মাসের অন্তসত্ত্বা : সুষ্ঠ বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

মনির গাজীপুর থেকে

গাজীপুর মহানগরীর ১৯ নং ওয়ার্ডের সালনা ল্যাবরেটরি স্কুলের ৭ম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রী ধর্ষণের পর সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ঘটনায় বুধবার ২৯ মে সকালে সালনা এলাকায় ওই শিক্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবিতে স্থানীয় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকসহ শতাধিক এলাকাবাসী মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে।

সকাল ১০ ঘটিকা থেকে শুরু করে ১০:৩০ মি: পর্যন্ত মানববন্ধন করে। উক্ত মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিলটি সালনা বাসস্ট্যান্ড থেকে শুরু করে এলাকার বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে সালনা ল্যাবরেটরি স্কুলের সামনে এসে শেষ হয় ।

মানববন্ধনে ধর্ষণকারি মোঃ সোহেল রানা সরকার (৪০) এর প্রতি তিব্র নিন্দা জানিয়ে মেয়ের বাবা-মা এবং মামা তানভির হোসেন তাম্বির সহ বক্তারা ধর্ষকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ক্ষতিপূরন এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা বন্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য সরকারের নিকট জোর দাবি জানান।

উল্লেখ্য, গত বছরের ১২ অক্টোবর ওই স্কুলের শিক্ষক রুবেলের কাছে স্কুলে প্রাইভেট পড়তে যায় ভিকটিম ছাত্রী। প্রাইভেট শেষে বাসায় যাওয়ার উদ্দেশ্য রওয়ানা করলে অভিযুক্ত ব্যক্তি ভিকটিমকে কথা আছে বলে অপেক্ষা করতে বলেন এবং তার সাথে থাকা অন্য ছাত্রীদের চলে যেতে বলেন। এরপর তাকে স্কুলের অফিস রুমে নিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করেন। উক্ত ঘটনা যাতে কারো সাথে শেয়ার না করেন, তার জন্য তাকে হুমকিও প্রদান করেন।

সম্প্রতি ভিকটিমের মা তার শরীরের অবস্থা ভাল না দেখে স্থানীয় সালনা সেবা ক্লিনিকে নিয়ে গেলে ডাক্তারী পরিক্ষা শেষে জানা যায়, ওই ছাত্রী ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। এ ঘটনায় ২১ মে ২০১৯ ইং তারিখ রাতে ধর্ষিতার বাবা গাজীপুর সদর থানায় মোঃ সোহেল রানা সরকার এর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন, যার অভিযোগ নং ৩৫।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ২১মে রাত আনুমানিক ১০:৩০ মিনিটের সময় গাজীপুর সদর থানা পুলিশ সাদা পোশাকে সোহেল রানা সরকারকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেন। গ্রেফতারকৃত সোহেল রানা মহানগরের দক্ষিণ সালনা এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে এবং সালনা ল্যাবরেটরি স্কুলের পরিচালক।

আস/এসআইসু

Facebook Comments