সাঁকোই ভরসা

আলোকিত সকাল ডেস্ক

ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলার পাঁচ গ্রামের মানুষের একমাত্র ভরসা শ্মশানখালী বাঁশের সাঁকো। ঝুঁকিপূর্ণ এ সাঁকো থেকে পড়ে স্রোতের টানে ভেসে গিয়ে নিহত ও সাঁকো থেকে পড়ে হাত ভেঙে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে অনেক। এছাড়া প্রতিদিন কেউ না কেউ দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।

এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার মাতুভূঞা ইউনিয়নের মহেশপুর, দক্ষিণ লালপুর, পূর্ব চন্দ্রপুর ইউনিয়নের হাসান গনিপুর, জায়লষ্কর ইউনিয়নের খুশিপুর ও উত্তর নেয়াজপুর গ্রামের মোহনায় শ্মশানখালী সাঁকো অবস্থিত। স্বাধীনতার পর থেকে স্থানীয়দের অর্থে এ সাঁকো নির্মিত হলেও সংস্কারে কেউ এগিয়ে আসেনি।

প্রতিদিন হাজার হাজার পথচারী, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার ছাত্রছাত্রীরা এ সাঁকো দিয়ে যাতায়াত করছে। ঝুঁকিপূর্ণ এ সাঁকো থেকে পড়ে স্রোতের টানে ভেসে গিয়ে নিহত হয়েছে হাসান নামে এক শিশু। গত বুধবার খুশিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র ও স্থানীয় মহেশপুর গ্রামের অটোরিকশা চালক সবুজের ছেলে ইয়াছিন সাঁকো থেকে পড়ে হাত ভেঙে গেছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আলমগীর জানান, একশ মিটার শ্মশানখালী সাঁকো প্রতিবছর স্থানীয়দের স্বেচ্ছাশ্রমে ও অর্থায়নে বাঁশ দিয়ে মেরামত করা হয়। নির্বাচন আসলে জনপ্রতিনিধিরা সাঁকোর স্থলে ব্রিজ নির্মাণের আশ্বাস দিলেও কোনো কাজে আসেনি।

ইতোমধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম ভূঞা বাঁশের সাঁকোটি পরিদর্শন করেছেন। এসময় স্থানীয় শত শত লোক একত্রিত হয়ে সাঁকোর স্থলে ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানান।

আস/এসআইসু

Facebook Comments