সংকটে মিলার ক্যারিয়ার

আলোকিত সকাল ডেস্ক

ব্যক্তি জীবনের নানা টানাপোড়েন থেকে বের হয়ে নতুন আশায় বুক বেঁধেছিলেন পপকন্যা মিলা হোসেন। আবারও জ্বলে ওঠার প্রত্যয় নিয়ে দীর্ঘ দুই বছর পর গানের জগতে প্রত্যাবর্তন করেন তিনি। কিন্তু জ্বলতে জ্বলতেই যেন নিভে যেতে থাকে তার ক্যারিয়ার। অশুভ শক্তি থেকে কিছুতেই যেন বের হতে পারছেন না এ গায়িকা। একটার পর একটা ঘটনা, অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ আর মামলা-মোকদ্দমায় হুমকির মুখে পড়েছে তার ক্যারিয়ার। এরই মধ্যে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরওয়ানা জারি করেছে আদালত। ২০১৭ সালে মিলার দায়ের করা নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায় মিলা সাক্ষী দিতে না আসায় একাধিকবার সমন জারি করা হয় তার বিরুদ্ধে। শেষ পর্যন্ত রোববার তার নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল-৯, ঢাকা।

এর আগে মিলা গত এপ্রিল মাসে সংবাদ সম্মেলন করে স্বামীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তোলেন। স্বামীর সঙ্গে বিয়ে বিচ্ছেদের অভিযোগের তীর ছুড়েন অভিনেত্রী নওশীনের দিকে। পরে নওশীনও এর জবাব দেন। অভিযোগের জবাব দেন মিলার স্বামী পারভেজও। মিথ্যা মামলার অভিযোগে মিলার বিরুদ্ধে মানববন্ধনও করা হয়। পাশাপাশি মিলার বিরুদ্ধে এসিড নিক্ষেপের অভিযোগ আনেন স্বামী পারভেজ আনসারী। যদিও এসিড নিক্ষেপের ঘটনায় মিলার কোনো সম্পৃক্ততা পায়নি পুলিশ।

এর আগে প্রায় ৭ বছরের বিরতি ভেঙে ২০১৫ সালে নতুন গান নিয়ে হাজির হয়েছিলেন পপ তারকা মিলা ইসলাম। ‘নাচো’ শিরোনামের সেই গানের অডিও-ভিডিও নিয়ে ফিরেই তাক লাগিয়ে দেন তিনি। গানটি মিলা ভক্তদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলে। তখন শ্রোতারা ভেবেছিলেন এখন থেকে হয়তো মিলাকে নিয়মিত পাওয়া যাবে গানে। খোদ এই পপ তারকাই নিয়মিত গান করার কথা জানান; কিন্তু না, সেটা হয়নি। ফের অনিয়মিত হয়ে পড়েন মিলা।

এরপর মিলা ২০১৭ সালে আলোচনায় আসেন বিয়ে করে। বিয়ের ঠিক দু’মাসের মাথায় স্বামী পারভেজ সানজারির বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনে মামলা করেন। ১০ বছর প্রেমের পর বিয়ে করেন মিলা ও সানজারি। তার স্বামী পারভেজ সানজারি পেশায় একজন বৈমানিক। বিয়ের পরপরই মনোমালিন্য শুরু হয় দু’জনের মধ্যে। মিলা অভিযোগ করেছিলেন, তার স্বামীর সঙ্গে একাধিক নারীর সম্পর্ক রয়েছে। তাছাড়া মিলাকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনও করেন। জানা গেছে, সানজারি জামিনে রয়েছেন। এই মামলটি এখনো চলছে। তবে ভালো নেই মিলা। কারণ মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন তিনি। বিশেষ করে তার স্বামীর পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবের পক্ষ থেকে বিভিন্নভাবে তাকে চাপে রাখা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন মিলা। আর তার ফলেই এখন কোনোভাবেই গানে মন বসাতে পারছেন না এ গায়িকা।

এ কারণে নতুন গান ও স্টেজ থেকে দূরে রয়েছেন এ পপ তারকা। মিলা বলেন, আমি যে অবস্থায় এখন রয়েছি সেই অবস্থায় কোনোভাবেই গানে মনোযোগ দেয়া সম্ভব নয়। আমি সবাইকে জানাতে চাই যে, আমি ভালো নেই। এ মামলাটির পর থেকে বিভিন্নভাবে আমাকে হেয় করার চেষ্টা চলছে। আমি কল্পনাও করতে পারিনি এমন সব ঘটনা ঘটছে। আমার মতো পরিচিত একজনেরই যদি এ অবস্থা হয় তাহলে সাধারণ মেয়েদের কী অবস্থা, সেটাও চিন্তায় আসে মাঝে মধ্যে। তবে আমার সঙ্গে যা হচ্ছে সেটা ঠিক হচ্ছে না। আমি চাই এখান থেকে বেরিয়ে এসে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে। আবার আগের মতো গানের জীবনে ফিরে যেতে।

কিন্তু সম্প্রতি গানে ফিরে বেশ কয়েকটি স্টেশ শো করলেও আবারও ব্যক্তিগত জটিলতার কবলে পড়েন মিলা। তারপরও হাল ছাড়ছেন না তিনি।

ভক্তদের হতাশ না হওয়ার পরামর্শ দিয়ে মিলা বলেন, ‘আমি আমার ভক্তদের বলতে চাই, আরও অপেক্ষা করুন। আমি নিজেকে গুছিয়ে নিতে চাই। বর্তমান অবস্থাটা থেকে বের হতে চাই। আবার গান নিয়ে সবার সামনে হাজির হতে চাই। আমার বিশ্বাস, আমার ক্যারিয়ার আবার আমাকে আগের অবস্থানে ফিরিয়ে আনবে।’

উলেস্নখ্য, ২০০৬ সালে অনেকটা জমকালোভাবেই সঙ্গীতাঙ্গনে অভিষেক ঘটে মিলার। তার প্রথম অ্যালবাম ‘ফেলে আসা’ প্রকাশ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে শোরগোল পড়ে যায় অডিও বাজারে। তারপর আর পেছনে তাকাতে হয় না তাকে। এরপর ২০০৮ সালে প্রকাশ পায় তার তার দ্বিতীয় একক এলবাম, ফুয়াদ ফিচারিং ‘মিলা চাপ্টার-২’। ২০০৯ সালে ফুয়াদ ফিচারিং মিলা ‘রি-ডিফাইন্ড’ বের হয় তার।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box