শাহজাদপুরের ৩ প্রতারকের বিরুদ্ধে ৫ লাখ টাকার প্রতারণা মামলা দায়ের

স্টাফ রিপোর্টার

সুসম্পর্কের জেরে ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে ৫ লাখ টাকা ধার নিয়ে সময়মতো পাওনাদারকে অর্থ ফেরত না দিয়ে উল্টো বিশ্বাস ভঙ্গ ও প্রতারণা করায় শাহজাদপুরের ৩ জন প্রতারকের বিরুদ্ধে জেলা পাবনার বিজ্ঞ অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট (কখ-১) আদালতে বিশ্বাস ভঙ্গ ও প্রতারণার অভিযোগে মামলা দায়ের হয়েছে। শাহজাদপুরের ৩ প্রতারকের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেছেন পাবনা পৌর এলাকার দক্ষিণ রাঘবপুর মহল্লার মৃত নিয়ামত আলীর ছেলে মিজানুর রহমান।

মামলার আসামীরা হলেন (১) শাহজাদপুর পৌর এলাকার রূপপুর পুরাতন পাড়া মহল্লার নিখিল চন্দ্র দাসের ছেলে শ্রী স্বপন চন্দ্র দাস (৫১), (২) স্বপন চন্দ্র দাসের ছেলে হৃদয় কুমার দাস (২৫) ও স্বপন চন্দ্র দাসের স্ত্রী মমমা রানী দাস (৪৫)। বিজ্ঞ আদালতের বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে ওই ৩ আসামীর বিরুদ্ধে সমন জারি করেছেন বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে।
দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২৩/১০/১৮ খ্রিষ্টাব্দ মঙ্গলবার সকালে পূর্ব পরিচয় ও সুসম্পর্কের জের ধরে ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে মামলার বাদী মিজানুর রহমানের পাবনার বাসভবনে গিয়ে তার নিকট থেকে শ্রী স্বপন চন্দ্র দাস, হৃদয় কুমার দাস ও মমমা রানী দাস ২’শ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর ও অঙ্গীকারনামা প্রদান করে ৫ লাখ টাকা নেন। ধারকৃত অর্থ ৬ মাস পরে বাদী মিজানুর রহমানকে ফেরত দেয়ার কথা থাকলেও পরবর্তীতে ওই ৩ আসামী প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে ৫ লাখ টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করে।

ধার দেয়া টাকা বার বার ফেরত চেয়েও না পেয়ে মিজানুর রহমান বাদী হয়ে গত ১৭ মে শাহজাদপুরের ৩ প্রতারক শ্রী স্বপন চন্দ্র দাস, হৃদয় কুমার দাস ও মমমা রানী দাসের বিরুদ্ধে বিশ্বাস ভঙ্গ ও প্রতারণার অভিযোগ এনে জেলা পাবনার বিজ্ঞ অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট (কখ-১) আদালতে ৪০৬/৪২০/১০৯ ধারায় মামলাটি দায়ের করেন। উল্লেখ্য, এ তিন প্রতারক শাহজাদপুর প্রেস ক্লাবের প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক, সাপ্তাহিক জনতার মশাল পত্রিকার বার্তা সম্পাদক (ভারঃ) শামছুর রহমান শিশিরের পরিবারের সদস্যদের প্রাণনাষের হুমকিসহ ক্ষতিসাধণের হুমকি দিলে সাংবাদিক শামছুর রহমান শিশিরের পিতা শাহাদৎ হোসেন সাঈদ পরিবারের নিরাপত্বা চেয়ে গত ১৫ জুন শাহজাদপুর থানায় একটি জিডি (নং- ৮০৫) করেন।

এ বিষয়ে সাংবাদিক শামছুর রহমান শিশির চরম দুঃখ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,’ আমার সহদর রবিন গত ৮ বছর ধরে পরিবার থেকে সস্পূর্ণ আলাদা হয়ে বাইরে অবস্থান করা সত্বেত আমার নামে এই প্রতারক চক্র ষড়যন্ত্রভাবে চরম আপত্তিকর ২টি মামলা করে হয়রানী করছে। ছোট ভাই রবিনের সাথে গত ৮ বছর প্রতারক এ চক্রের নিয়মিত আন্তরিক সম্পর্ক চলছিলো।

এক পর্যায়ে মমতা রানী আমার ভাই রবিনের কাছ থেকে মোটা অর্থ হাতিয়ে নিয়ে তার মেয়ের সাথে বিয়ের প্রস্তাব দেয় ও তার মেয়েকে রবিনের সাথে ভাগিয়ে দিয়ে সম্প্রদায়ের চাপে পড়ে প্রেম ভালোবাসার ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে অপহরনসহ আমাদের পরিবারের সদস্যদের নামে একের পর এক ৩টি মিথ্যা মামলা দায়ের ও এরা ৩ জনসহ আরও ৭/৮ জন আমাদের বিভিন্নভাবে প্রাণনাশ ও ক্ষতিসাধনের পুনঃপুন হুমকি দিয়েই যাচ্ছে। প্রতারনার মামলার বাদি, স্বাক্ষী কারোর সাথেই আমাদের কোন চেনাজানা না থাকলেও ৫ লাখ টাকা অাত্মসাৎ করেও সে দোষও আমাদের ওপর চাপাচ্ছে যা অত্যন্ত বেদনাদায়ক ও চরম মানহানিকর বটে!’

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box