লক্ষ্মীপুর মধুবন বেকারির ভেজাল খাদ্য উৎপাদনিয়ে প্রতারণা শিকার ভোক্তারা

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি:  লক্ষ্মীপুরে বেকারি খাদ্য উৎপাদন ও উত্তীর্ণ মেয়াদের তারিখ নিয়ে ভোক্তাদের সাথে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে ‘মধুবন বেকারী এন্ড সুইটস্’ এর বিরুদ্ধে। উৎপাদন ও মেয়াদের নির্ধারিত তারিখ না দিয়ে অগ্রিম উৎপাদন ও উত্তীর্ণের মেয়াদ বসিয়ে বাজারজাত করা হচ্ছে। এতে প্রতারিত হচ্ছেন সাধারণ ভোক্তারা। বেকারি সংশ্লিষ্টরা অনিয়মের বিষয়টি শিকার করেছেন।শনিবার (১৫ আগস্ট) লক্ষ্মীপুরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে এমন অগ্রিম উৎপাদন ও মেয়াদের বেকারী খাদ্য পন্য বাজারে বিকিকিনি করতে দেখা যায়।

দেখা যায়, মধুবন বেকারীর কেক দু’দিন পূর্বে উৎপাদিত হলেও ১৬ তারিখে উৎপাদন ও মেয়াদ ২৩ আগস্ট দেয়া হয়।

এছাড়াও একই তারিখে উৎপাদিত বেকারী খাদ্য পণ্যের উত্তীর্নের মেয়াদ ভিন্ন ভিন্ন। এতে মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও তাদের দেয়া সিলের কারণে সেটি বাজরে বিক্রি হচ্ছে। এতে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছে ভোক্তারা।

দোকানীরা জানান, মধুবন বেকারি এন্ড সুইটস্ থেকে অগ্রিম তারিখের উৎপাদিত সীল দিয়ে এসব বেকারী খাদ্য সরবরাহ করা হয়। এতে কিছু করার নাই। ভোক্তা চাহিদার কারণে এগুলো বিক্রি করতে হচ্ছে।

এদিকে কয়েকজন ভোক্তা জানান, তাজা খাবার সরবরাহের নামে ভোক্তাদের সাথে প্রতারনা করছে মধুবন বেকারী। এতে ঝুঁকিতে রয়েছে স্বাস্থ্য। এতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।

অভিযোগ শিকার করে মধুবন বেকারী এন্ড সুইটস্ এর ম্যানেজার শ্যামর বাবু বলেন, আগ্রীম তারিখ দেয়া ঠিক হয়নি। ভবিষ্যতে এমন কাজ আর হবে না বলে জানান তিনি।

মধুবন বেকারি মালিক হাবিবুর রহমান খবর পেয়ে তড়িঘড়ি করে শহরে বিভিন্ন দোকান থেকে অগ্রিম তারিখ দেওয়ার কেক গুলো তুলে নেওয়ার সময় সাংবাদিকদের ছবি তুলতে গেলে বাধা প্রদান করেন।

ভুলবশত অতিরিক্ত তারিখ দেওয়ার বিষয় স্বীকার করে বলেন, এটা ডিলারের কারসাজি।

এ ব্যাপারে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিকের সাথে যোগাগের চেষ্টা করেও বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

(আরও বিস্তারিত দেখতে চোখ রাখুন পরের পর্বে)

Facebook Comments Box