লক্ষ্মীপুরে “হীরামনি” ধর্ষণ ও হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন!

নিজস্ব প্রতিবেদক: লক্ষ্মীপুরে আলোচিত স্কুল ছাত্রী হীরামনি হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন! উক্ত মামলায় গ্রেফতারকৃত তিন আসামীর ধর্ষণসহ বিভিন্ন অপরাধ প্রমাণের অন্যতম মাধ্যম ডিঅক্সিরাইবো নিউক্লিক এসিড (ডিএনএ) টেস্ট এর রিপোর্ট।

ঘটনার তিন মাসের মধ্যে ডিএনএ টেস্টের রিপোর্টে তার সত্যতা মিলেছে বলে পুলিশ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। ইতিমধ্যে ডিএনএ টেস্টের রিপোর্ট পুলিশের কাছে জমা হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে আসামী আরিফের সাথে DNA Match পুরোপুরি মিলেছে বলে একটি বিশ্বস্ত সূত্রে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ দিকে সদর থানার ওসি তদন্ত মো. মোসলেহ উদ্দিন এ আলোচিত স্কুল ছাত্রী হিরামনি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। অপরদিকে তদন্তের স্বার্থে আরো ব্যাপকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে আসামী আরিফ হোসেনের ৫দিনের রিমান্ডের আবেদন করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা।

পরে আদালত ২দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বর্তমানে আরিফ হোসেন পুলিশী রিমান্ডে রয়েছে বলে জানা গেছে। খুব শীঘ্রই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলার চার্জশিট আদালতে দাখিল করার কথা রয়েছে। এখন পর্যন্ত এ মামলায় আরিফ হোসেন ছাড়া আরো দুইজন জেলহাজতে রয়েছেন।

উল্লেখ্য, ১২জুন শুক্রবার দুপুরে সদর উপজেলার পশ্চিম গোপীনাথপুর এলাকায় নিজ ঘরে ৯ম শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী হিরামনিকে ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়। এসময় হিরামনির ক্যান্সার আক্রান্ত বাবা হারুনুর রশিদকে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় ছিলেন তার মা।

এ সুযোগে হিরামনিকে একা পেয়ে ধর্ষনের পর হত্যা করা হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদ ও জড়িতের গ্রেপ্তারের দাবীতে লক্ষ্মীপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনসহ নানা কর্মসুচি পালন করা হয়। গত কয়েকদিন আগে ক্যান্সার আক্রান্ত হয়ে হিরামনির বাবা দিনমজুর হারুনুর রশিদ মারা যায়।

Facebook Comments Box