রায়পুরে কাউন্সিলর প্রার্থীকে হুমকি! সমর্থকদের থানা ঘেরাও : বিক্ষোভ

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি :লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ৮ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হোসেনকে হুমকি দিয়ে পানির বোতল নিক্ষেপ করা উত্তেজনা বিরাজ করছে । প্রতিবাদে আ’লীগ নেতা কাজি জামশেদ কবির বাকি বিল্লাহের নেতৃত্বে সমর্থকরা শহরে বিক্ষোভ করে থানা ঘেরাও করেছে। শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারী) বিকালে মিরগঞ্জ সড়কের প্রার্থীর কার্যালয়ের সামনে ঘটনা ঘটেছে।

এঘটনায় সন্ধায় ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হোসেন বাদি হয়ে প্রতিদন্ধি প্রার্থী আবদুল কাদের রিয়াজ ও জেলা পরিষদের সদস্য মামুন বিন জাকারিয়াসহ অজ্ঞাতদের আসামি করে রায়পুর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হোসেন (পাজ্ঞাবি) জানান, দুপুরে তিনি তার কার্যালয়ে অবস্থান করছিলেন। এসময় রিয়াজ মুন্সি (টেবিল ল্যাম্প) ও যুবলীগ নেতা মামুনসহ অজ্ঞাত ৭/৮ জনের দুর্বৃত্ত এসে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে পানির বোতল ছুড়ে মাড়ে মুখে। এবং রায়পুর ছেড়ে চলে যাওয়ার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এঘটনার বিচার চেয়ে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদকের কাছে বিচার চাওয়া হয়েছে। এঘটনা শুনে বিচারের দাবিতে তার সহস্রাধিক সমর্থক শহরে বিক্ষোভ করে।

আবুল হোসেন পৌরসভার বিএনপির নেতা ও সাবেক কাউন্সিলর আমিন উল্লার ছোট ভাই। আব্দুল কাদের রিয়াজ পৌরসভার আওয়ামী লীগ নেতা ও বর্তমান কাউন্সিলর।

সরেজমিনে দেখা যায়, শনিবার সাপ্তাহিক ছুটি হিসেবে রায়পুর পৌরসভার দোকানপাট সব বন্ধ। এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। আবুল হোসেনের পক্ষে পৌর আ’লীগের আহবায়ক কাজি জামশেদ কবির বাকি বিল্লাহর নেতৃত্বে ৩ শতাধিক সমর্থক থানার গেইটের সামনে অবস্থান করেন। পরে পুলিশ কর্মকর্তারা ও আ’লীগের নেতারা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন। শহরের ব্যস্ততম এলাকা কোনো মোটর সাইকেল ও ইঞ্জিন চালিত অটো রিকশা নেই বললেই চলে।

আবুল হোসেন বলেন, কোনো রকম সহিংসতা ছাড়াই তিনি প্রচার–প্রচারণা শেষ তার কার্যালয়ে অবস্থান করছিলেন। কিন্তু শনিবার দুপুরে হঠাৎ করে কাউন্সিলর রিয়াজ তাঁর সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তাঁর বাড়ীতে এসে হুমকি দিয়ে যান। এঘটনায় তিনি থানায় মামলা করেছেন।

কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুল কাদের রিয়াজ বলেন, পৌরসভার বিএনপি নেতা আবুল হোসেন মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে বিভ্রান্তি করছেন। আমি কিছুই জানিনা। আমাকে বসিয়ে দেয়ার জন্য পৌর আ’লীগের আহবায়কসহ কয়েকজন আ’লীগ নেতা আবুল হোসেনকে সহযোগিতা করছেন। নির্বাচনী সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট ও তাঁর ক্লিন ইমেজ ক্ষুণ্ন করার জন্য গুজব ছড়াচ্ছে।

রায়পুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল বলেন, পরিস্থিতি শান্ত আছে। অজ্ঞাতদের আসামি করে কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হোসেন সাধারন ডায়রি করেছেন।

Facebook Comments Box