রাজধানীজুড়ে রঙিন কুকুর!

আলোকিত সকাল ডেস্ক

রাজধানীজুড়ে নিয়মিত দেখা মিলছে রঙিন কুকুর। কুকুরগুলোর গায়ে লাল ও গোলাপি রং। সাজাতে নয়, জলাতঙ্ক নির্মূলে এসব কুকুরকে টিকা দেয়ার পর চিহ্নিত করা হয়েছে এভাবে। উচ্চ-আদালতের নির্দেশনা অনুসারে এসব কুকুরকে না মেরে টিকাদান কর্মসূচি সম্পন্ন করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা। কাজটিতে সার্বিকভাবে সহায়তা করছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এ মৌসুমে চলতি মাসের ১৪ থেকে ২০ মে পর্যন্ত ৪২ হাজার ৯৩৫টি কুকুরকে টিকা দেয়া হয়েছে।

চিহ্নিত করার জন্য কুকুরগুলোর গায়ে মুছে যাবে না এমন লাল ও গোলাপি রং লাগানো হয়েছে। যাতে এক কুকুরকে দু’বার টিকা দেয়া না হয়। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রের (সিডিসি) উপ-পরিচালক ডা. উম্মে রুমান সিদ্দিকী বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য ২০৩০ সালের আগেই জলাতঙ্ক নির্মূল করা। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে আমাদের কর্মকান্ড অনুসারে সেটা সম্ভব হবে বলে আমরা মনে করি। সবশেষ রাজধানীজুড়ে উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সার্বিক সহযোগিতায় আমরা ৪২ হাজার ৯৩৫টি কুকুরকে জলাতঙ্ক প্রতিরোধক টিকা দেয়া সম্পন্ন করেছি।’ তিনি বলেন, ‘রাজধানীতে আমাদের হিসাব অনুসারে ৪৮ হাজারের বেশি কুকুর রয়েছে। এসব কুকুরকে টিকা দেয়া প্রায় অসম্ভব কাজ। তবে আমরা যতদূর সম্ভব তা করেছি। এছাড়া বেসরকারি সহযোগী প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে টিকাদান কর্মসূচি চলবে।’ এদিকে জলাতঙ্কের প্রতিরোধক টিকা দেয়া হলেও রাজধানীবাসীর অভিযোগ, এক এলাকার কুকুরকে ধরে নিয়ে টিকা দিয়ে অন্য এলাকায় ছেড়ে দেয়ায় কিছুটা বিরক্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

সারাদিন সারারাত কুকুরদের চেঁচামেচি ও মারামারি চলতেই থাকে। এতে ছোটাছুটি করার সময় অনেক কুকুর গাড়ির নিচে পিষ্ট হয়ে মারা যাচ্ছে। এ বিষয়ে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মোমিনুর রহমান মামুন বলেন, ‘কুকুর আসলে একটি এলাকায় নিজেদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার করে বসবাস করে। তাই এক এলাকার কুকুর অন্য এলাকায় ছেড়ে দিলে সমস্যা দেখা দেয়। তাই এক্ষেত্রে অভিযোগ পেয়ে আমরা যে এলাকার কুকুর সেই এলাকাতেই ছেড়েছি। এখন আর সমস্যা থাকার কথা নয়।

এছাড়া আমাদের এই কাজে ব্যাপক সহায়তা করেছে অভয়ারণ্য নামে একটি প্রতিষ্ঠান। টিকা দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় জনবল তৈরিতে প্রশিক্ষণ দেয়ার মাধ্যমে সহযোগিতাসহ তারাও অনেক কুকুরকে টিকা দিয়েছে।’ এদিকে সারাদেশে ১৬ লাখ কুকুর আছে উলেস্নখ করে সামগ্রিক বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘বাংলাদেশে যেভাবে রাস্তায় কুকুর ঘুরে বেড়ায় উন্নত বিশ্বের কোথাও তা দেখা যায় না। সবাই কুকুরকে পোষে। কেননা এই প্রাণীটা অত্যন্ত প্রভুক্ত ও বিশ্বাসী প্রাণী। তাদের পুষলে ব্যক্তিগত সুবিধাও আছে। দেশের মোট ১৬ লাখ কুকুরকে যদি আমরা সবাই বাড়িতে রেখে পুষি তাহলে জলাতঙ্ক একেবারেই নির্মূল হবে। সঙ্গে সঙ্গে আমাদের বাড়ির নিরাপত্তাও নিশ্চিত হবে। তাই এক্ষেত্রে কুকুরকে টিকাদান কর্মসূচির পর দেশের জনগণকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।’

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box