রাঙ্গুনিয়া থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে আলহাজ্ব জহির আহম্মদ চৌধুরীকে” দেখতে চাই

রাঙ্গুনিয়াতে যাদের হাত ধরে আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তারমধ্যে আলহাজ্ব জহির আহম্মদ চৌধুরী অন্যতম।

দলের দুঃসময়ে বিরূপ পরিস্থিতির মধ্যে দায়িত্ব পালন করেছেন নির্বিক সৈনিকের মত। রাঙ্গুনিয়া আনাছে কানাছে চষে বেড়িয়েছেন, সৃষ্টি করেছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক। প্রত্যক্ষ ভোটে তিন তিন বার নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি।

৪ বার নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন ৬ নং পোমরা ইউনিয়ন পরিষদের অভিভাবক হিসেবে।

পরবর্তী চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সেক্রেটারিয়েট হিসেবে মনোনীত হন। সর্বশেষ উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
বঙ্গবন্ধুর নামে প্রতিষ্ঠিত করেছেন বিদ্যালয়। যেটা ১৯৯৫ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সয়ং উদ্ভোধন করেন। বঙ্গবন্ধুর নামে অনেকগুলো প্রতিষ্ঠান থাকলে এই বিদ্যালয় অদ্বিতীয়। সর্বশেষ ২০১৮ সালে এটিকে সরকারিকরণের আওতায় অন্তর্ভুক্ত করেন মাদার অব হিউম্যানিটি, গনতন্ত্রের মানষকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা।

১৯৯৫ সালে মিথ্যা ম্যাডার মামলা আসামী করে সেনাবাহিনী দ্বারা গ্রেফতার করেন তৎকালীন এমপি যুদ্ধ অপরাধীর সাজাপ্রাপ্ত প্রয়াত সাকা চৌধুরী। এই গ্রেফতারের প্রতিবাদে পুরো চট্টগ্রাম জুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পালন করা হয় দুই দীন ব্যাপী সর্বাত্মক হরতাল। জনগনের রোষানলে পড়ে দুইদিনের মাথায় ছাড়তে হয় তাকে। তার পরিবর্তে বড় ছেলে জাহেদুল আলম চৌধুরীকে খাটতে হয় ৩ মাস জেল এবং ভাতিজা মোহাম্মদ আলীকে ৬ মাস।

আজকের যে রাঙ্গুনিয়ায় ঘরে ঘরে আওয়ামীলীগের জয় জয়কার সেটা একদিনে সম্ভব হয়নি। কিছু মানুষের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফসল আজকের এই সফলতা।

বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া এই সৈনিক কখনো অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষ করেননি। ন্যায় বিচারকের উজ্জ্বল দৃষ্টান্তর রাজনীতির এই কান্ডারী। জীবনে অনেক সুযোগ এসেছে দুর্নীতি করার,হয়তো বা সেগুলো লুফে নিলে আজকে হতে পারত কোটিপতি।

দল দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকায় উপজেলার সাংগঠিক কার্যক্রম স্থবির হয়ে যাচ্ছে। রাঙ্গুনিয়া থানা আওয়ামীলীগকে আবার আগের মত চাঙ্গা করার জন্য ওনার মত তেজস্বী মানুষকে দায়িত্ব আনার
দরকার।

আধুনিক রাঙ্গুনিয়ার রূপকার & বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্যমন্ত্রী ড. হাসান মাহমুদ মহোদয় এই বিষয়ে তীক্ষ্ণ সিদ্বান্ত নিবে বলে আশা প্রকাশ করছি।

আস/এসআইসু

Facebook Comments