রক্তচাপ বেড়ে ঘাড়ে ব্যথা হলে যা করবেন

আলোকিত সকাল ডেস্ক

উচ্চ রক্তচাপ বা হাই ব্লাড প্রেসার হঠাৎ করেই মারাত্নক বিপদ ডেকে আনতে পারে। করোনারি হার্ট ডিজিজ, হার্টফেল, স্ট্রোক, কিডনি অকেজো ইত্যাদি মারাত্মক সমস্যা দেখা দিতে পারে উচ্চ রক্তচাপের ফলে।

লক্ষণ

মাথা ব্যথা, বিশেষ করে পেছনের দিকে ব্যথা। সকালে ঘুম থেকে উঠার পর ব্যথা। তবে দু-চার ঘণ্টা পর কমে যায়। মাথা ঘোরা, বুক ধড়ফড় করা, মনোযোগের অভাব, অল্পতে হাঁপিয়ে যাওয়া, মাংসপেশির দুর্বলতা, পা ফোলা, বুকে ব্যথা, নাক দিয়ে রক্ত পড়া, ক্লান্তিবোধ, ঘাড় ব্যথা।

কারণ

ধূমপান, ওজন বেশি, অলস জীবন-যাপন, খাবারের সঙ্গে বেশি লবণ গ্রহণ, নেশাজাতীয় দ্রব্য সেবন, বংশগত কারণে, ক্রনিক কিডনি রোগ, অ্যাড্রেনাল ও থাইরয়েড গ্রন্থির সমস্যা।

ঘরোয়া সমাধান

এক মাস সকাল ও সন্ধ্যায় দুই চামচ করে থানকুনি পাতার রস খাওয়া।

রসুন ১ কোয়া করে দুই বেলা ভাতের সঙ্গে ১৫ দিন খান।

৪টি তুলসি পাতা ও ২টি নিম পাতা ১ চা চামচ পানিতে চটকিয়ে খেয়ে নিন।
১০০ গ্রাম পানিতে মাঝারি আকারের অর্ধেকটা লেবু চিপে দিনে ২-৩ বার পান করতে হবে।

যা করবেন

ওজন কামানো, লবণ ও সোডিয়ামযুক্ত খাদ্য কম গ্রহণ, হাঁটা, দৌড়ানো, সাঁতার কাটা ও শারীরিক পরিশ্রম করা, রেড মিট না খাওয়া।

শোবার সময় একটা মাঝারি আকারের বালিশ ব্যবহার করবেন, যার অর্ধেকটুকু মাথা ও অর্ধেকটুকু ঘাড়ের নিচে দেবেন।

তীব্র ব্যথা কমে গেলেও ঘাড় নিচু বা উঁচু করা, মোচড়ানো পজিশন বন্ধ করা।

কাত হয়ে শুয়ে দীর্ঘক্ষণ পড়বেন না বা টেলিভিশন দেখবেন না।

কম্পিউটারে কাজ করার সময় মনিটর চোখের লেভেলে রাখবেন।

সামনের দিকে ঝুঁকে দীর্ঘক্ষণ কাজ করবেন না।

ঘাড়ের মুভমেন্ট স্বাভাবিক করা।

মাথার ওপর কোনো ওজন নেবেন না।

প্রয়োজনীয় বিশ্রাম নিতে হবে।

শক্ত বিছানায় ঘুমাবেন।

অতিরিক্ত শারীরিক পরিশ্রম কমাতে হবে।

সেলুনে কখনোই ঘাড় মটকাবেন না।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box