যেসব স্পিনাররা নজর কাড়তে পারেন বিশ্বকাপে

আলোকিত সকাল ডেস্ক

শুকনো পিচ ও গরম আবহাওয়া এ দুইয়ে মিলে আসন্ন বিশ্বকাপ স্পিনারদের জন্য ভালো সুযোগ করে দিতে পারে বলে মনে করছেন অনেক ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ।

ওয়ানডেতে এক ইনিংসে দুইটি দুইটি নতুন বল ব্যবহারের রীতি শুরু হওয়ার পর থেকে মিডল ওভারে ব্রেক-থ্রু এনে দেয়ার মূল দায়িত্ব এখন অনেকটাই স্পিনারদের হাতে। ৩০মে থেকে শুরু হওয়া বিশ্বকাপে কোন ৫ স্পিনার হতে পারেন নিজ নিজ দলের তুরুপের তাস, সে প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা থাকছে আজ।

১। সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ)

অনুমেয়ভাবেই বিশ্বকাপে বাংলাদেশ স্পিন আক্রমণের নেতৃত্ব থাকবে সাকিব আল হাসানের কাঁধে। ৩২ বছর বয়সী এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার এ পর্যন্ত ১৯৮ ম্যাচ খেলে নিয়েছেন ২৪৯ উইকেট। এক সময়ের আন্ডারডগ ট্যাগ থেকে আজ সবার সমীহ পাওয়া বাংলাদেশ দলকে টেনে তুলতে সাকিবের অবদানই সবথেকে বেশি। বোলিংয়ের পাশাপাশি তার ব্যাটিংটাও বাংলাদেশের জন্য হবে বেশ কার্যকরী। দলে সাকিব থাকা মানে এক খেলোয়াড়ের মধ্যেই একজন পাকা স্পিনার ও একজন পূর্ণাঙ্গ ব্যাটসম্যান পাওয়া। সাকিব যদি তার অভিজ্ঞতার পুরোটা ঢেলে দিতে পারেন ইংল্যান্ডে, টাইগারদের জন্য বিশ্বকাপ সেমিফাইনালের পথটা হয়ে যাবে অনেক সহজ।

২। কুলদীপ যাদব (ভারত)

ভারতের তৃতীয় বিশ্বকাপ জয়ের মিশনে কুলদীপ হতে পারেন তাদের বোলিং আক্রমণের মূল কাণ্ডারি। ভারতের সর্বশেষ ইংল্যান্ড সফরে তার অসাধারণ পারফরম্যান্স সেই ইঙ্গিতই দিচ্ছে। সেই সফরে ভারত ২-১ এ ওয়ানডে সিরিজ হারলেও ৩ ম্যাচে কুলদীপ নিয়েছিলেন ৯ উইকেট। এ পর্যন্ত ৪৪টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ৮৫টি উইকেট ঝুলিতে ভরেছেন এই চায়নাম্যান বোলার। তবে সদ্য সমাপ্ত আইপিএলে কুলদীপের ফর্মহীনতা ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টের কপালে ফেলছে চিন্তার ভাঁজ। আইপিএলে কেকেআরের হয়ে ৯ ম্যাচ খেলে তিনি মাত্র ৪টি উইকেট দখল করতে পেরেছেন, রানও দিয়েছেন অঢেল। তবে বিরাট কোহলির আশা, বড় টুর্নামেন্টের আগে ঠিকই জ্বলে উঠবেন দলের সেরা এই স্পিনার।

৩। রশিদ খান (আফগানিস্তান)

আসন্ন বিশ্বকাপে আফগানিস্তান কতদূর যাবে, তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ থাকলেও রশিদ খানের কল্যাণে যে বেশকিছু আফগান ঝলক দেখা যাবে, তাতে সন্দেহ নেই। এই মুহূর্তে ওয়ানডে র‍্যাংকিংয়ে তিন নম্বরে আছেন এই লেগ-স্পিনার। ২০ বছর বয়সী রশিদের আইপিএল পারফরম্যান্সও দারুণ। সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের হয়ে ১৫ ম্যাচে মাঠে নেমে তুলে নিয়েছেন ১৭ উইকেট। ওয়ানডেতে রশিদ খানের রেকর্ড অসাধারণ। ৫৭টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে উইকেট পেয়েছেন ১২৩টি।

৪। নাথান লিওন (অস্ট্রেলিয়া)

টেস্ট ক্রিকেটে নাথান লিওন অস্ট্রেলিয়ার স্পিন আক্রমণের নিয়মিত মুখ। অসংখ্য টেস্টে অস্ট্রেলিয়াকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেয়ার কৃতিত্ব রয়েছে এই অফ-ব্রেক বোলারের। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে লিওন খুব একটা নিয়মিত হতে পারেননি কখনোই। এবারই প্রথম বিশ্বকাপের মঞ্চে দেখা যাবে তাকে। ক্যারিয়ারে এপর্যন্ত লিওন মাত্র ২৫টি ওয়ানডে খেলেছেন। তবে তার টেস্ট ক্রিকেটের সমৃদ্ধ অভিজ্ঞতা কাজে লাগতে পারে ইংল্যান্ডে। ফিঞ্চবাহিনীর বিশ্বকাপ ধরে রাখার মিশনে লিওন যদি তার স্বভাবজাত টার্ন ও বাউন্স আদায় করে নিতে পারেন, তবে বিশ্বকাপটা হতে পারে নাথান লিওনের।

৫। ইমরান তাহির (দক্ষিণ আফ্রিকা)

দক্ষিণ আফ্রিকান লেগ-স্পিনার ইমরান তাহিরের জন্য এটাই হতে যাচ্ছে ক্যারিয়ারের শেষ বিশ্বকাপ। তাই দক্ষিণ আফ্রিকার বিশ্বকাপ স্বপ্নকে পূর্ণতা দিতে শেষ সুযোগ অপেক্ষা করছে তাহিরের সামনে। পুরো ক্যারিয়ারজুড়েই দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিন আক্রমণের নেতৃত্ব দিয়ে গেছেন তিনি। প্রোটিয়াদের হয়ে ৯৮ ম্যাচ খেলে উইকেট নিয়েছেন ১৬২টি। ক্যারিয়ার সেরা পারফরম্যান্স ৪৫ রানে ৭ উইকেট। এবারের আইপিএলে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে ১৭ ম্যাচ খেলে নিয়েছেন ২৬ উইকেট। এতেই ইঙ্গিত পাওয়া যায়, কি দুর্দান্ত ফর্মে আছেন এই পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত স্পিনার!

আস/এসআইসু

Facebook Comments