ভেজাল পণ্য প্রত্যাহারের নির্দেশ দেবে খাদ্য নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষ

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বাজার থেকে ভেজাল পণ্য তুলে নেয়ার জন্য হাইকোর্টের নির্দেশের পর নড়েচড়ে বসেছে সরকারের পণ্য নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো। মান নিয়ন্ত্রক সংস্থা- বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সিটিটিউশন (বিএসটিআই) এর করা মান পরীক্ষায় ৫২ পণ্যের মধ্যে ভেজালের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

একটি প্রতিষ্ঠানের করা রিটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের এই নির্দেশনা বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া শুরু করেছে সরকারের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলো। তারই প্রেক্ষিতে রোববার (১২ মে) বিএসটিআই-এর কাছে ল্যাবরেটরি টেস্টের প্রতিবেদন চেয়েছে বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তা কতৃপক্ষ (বিএসএসএ)।

প্রতিবেদন হাতে পেলেই বাজার থেকে এ সব পণ্য প্রত্যাহারের জন্য কোম্পানিগুলোকে নির্দেশ দেবে প্রতিষ্ঠানটি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, হাইকোর্টের নির্দেশ পাওয়ার পরই বাংলাদেশ খাদ্য নিরাপত্তা কতৃপক্ষ (বিএফএসএ) বিএসটিআই এর কাছে ভেজাল পণ্যের মান পরীক্ষার প্রতিবেদন চেয়েছে। আর এই প্রতিবেদনে যেসব পণ্যে ভেজাল পাওয়া গেছে সেসব পণ্য বাজার থেকে তুলে নেয়া নির্দেশ দেবে বিএফএসএ। তারপরেও কোম্পানিগুলো যদি পণ্য তুলে নিতে গড়িমসি করে তাহলে সঙ্গে সঙ্গেই ব্যবস্থা নেবে প্রতিষ্ঠানটি।

বিএসটিআই থেকে কালকের মধ্যে ল্যারেটরি টেস্টের প্রতিবেদন দেয়া হবে বলে দৈনিক জাগরণকে নিশ্চিত করেছে বিএসটিআই সূত্র।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মাহফুজুল হক দৈনিক জাগরণকে বলেন, হাইকোর্টের নিদের্শনা আমরা বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া শুরু করেছি। ইতিমধ্যে বিএসটিআইকে তাদের মান পরীক্ষার প্রতিবেদন চেয়েছি।

বিএসটিআই বলছে, কাল (সোমবার) আমাদের এই প্রতিবেদন দেবে। আর এই প্রতিবেদন অনুযায়ী যেসব কোম্পানির পণ্যে ভেজাল পাওয়া গেছে সেসব কোম্পানির সঙ্গে বসবো। আর কোম্পানিগুলোকে তাদের এ সব পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহারের জন্য বলা হবে। তারপরও যদি কোন কোম্পানি তাদের পণ্য বাজার থেকে না নেয় তাহলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিএসটিআই সূত্র জানায়, বাজার থেকে ৪০৬টি পণ্যের নমুনা সংগ্রহ করে বিএসটিআই ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। তারমধ্যে ৩১৩টি পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া গেছে। এসব পরীক্ষায় ৫২টি অকৃতকার্য হয়েছে। ৫২ পণ্যের মধ্যে রয়েছে- বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সরিষার তেল, পানি, লাচ্ছা সেমাই, নুডলস, সফট ড্রিংক পাউডার, হলুদের গুঁড়া, ধনিয়ার গুঁড়া, কারি পাউডার, ঘি, মরিচের গুঁড়া, আয়োডিনযুক্ত লবণ, ময়দা, ফারমেন্টেড মিল্ক (দই), চানাচুর, বিস্কুট, সুজি, মধু, চিপসসহ আরও কিছু পণ্য। পরে এসব পণ্যের উৎপাদন বন্ধ, বাজার থেকে অপসারণ চেয়ে হাইকোর্টে রিট করে ভোক্তা অধিকার সংস্থা কনসাস কনজুমার্স সোসাইটি (সিসিএস) এর নির্বাহী পরিচালক পলাশ মাহমুদ।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিএসটিআই-এর পরিচালক (সিএম) ইসহাক আলী দৈনিক জাগরণকে বলেন, বিএসটিআই বাজার থেকে নমুনা সংগ্রহ করে মান পরীক্ষা করেছে। আর এতে যেসব পণ্যে ভেজাল পাওয়া গেছে সেসব পণ্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বলা হয়েছে। আর এসব পণ্য বাজার থেকে পণ্য তুলে নেয়ার বিষয়টি নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও ভোক্তা অধিদফতরের তাই তারা বিষয়টি দেখবে। আমাদের কাছে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ল্যাবরেটরির প্রতিবেদন চেয়েছে। আমরা কালই দিয়ে দেবো বলে জানান বিএসটিআই-এর এই পরিচালক।

আস/এসআইসু

Facebook Comments