বৃদ্ধা মাকে বাড়ি থেকে বের করে দিল পাষন্ড ছেলে!

রাজশাহী প্রতিনিধি

রাজশাহীর দূর্গাপুর উপজেলার দেবীপুর গ্রামে এক বৃদ্ধা মাকে বসতবাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়ে ছেলে তা দখলে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গত শুক্রবার সন্ধ্যায় দূর্গাপুর থানায় মৌখিক অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। অভিযুক্ত বৃদ্ধার ছোট ছেলে লালন হোসেনের নামে।

ওই অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ওই গ্রামের মৃত অাতাউর মোল্লা তাঁর স্ত্রী কুলসুম বেগম (৭০), তার স্বামী চার ছেলে ও এক মেয়েকে রেখে কিছুদিন আগে মারা যান। ছেলেদের কাছে ঠাঁই পাননি মা কুলসুম বেগম। বাধ্য হয়ে তিনি বাপের বাড়ি থেকে পাওয়া এবং ওই স্বামীর রেখে যাওয়া কিছু সম্পত্তি থেকে অংশীদার সূত্রে নিজের ও চার ছেলের এক মেয়ের নামে পাওয়া প্রায় ২০ শতক জমিতে নতুন করে বাড়ি নির্মাণ করে সেখানে ওই বাড়িতে বসবাস করছিলেন তিনি।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সড়কের ধারে অবস্থিত হওয়ায় কুলসুম বেগম যে জমিতে বাড়ি করে থাকতেন, সেই জমির দাম অনেক বেশি। এ কারণে ছেলেমেয়ের মধ্যে সবচেয়ে ছোট ছেলে লালন ওই প্রায় ২০ শতক জমি নিজের দাবি করে গত ৭( মে) মঙ্গলবার সকালে বসতবাড়ি দখলে নেয় এবং বাড়িঘরে লুটপাট চালান। এ সময় লালন তার মাকে বের করে দেয়। ঘটনার দিন কুলসুমের মেয়ে ও ছেলেরা এগিয়ে অাসলে তাদেরকে ও মারধর করে এবং বলে এই জমি অামার নামে লিখে নিয়েছি, অামার কাজে বাধা দিলে তোদের নামে মামলা করবো।

কুলসুম বেগম বলেন, ‘ছেলে লালন এর অত্যাচারে স্বামীর বসতবাড়ি ছেড়ে ১বছর আগে স্বামীর কাছ থেকে পাওয়া জমিও অামার বাপের বাড়ির জমি বিক্রয়ের টাকা দিয়ে নতুন করে বাড়িঘর করে বসবাস করে আসছিলাম। এখন সেই বসতভিটার দাম খুব বেশি হওয়ায় সেখানেও লোভ পড়েছে ছোট ছেলে লালনের।

সে আমাকে বাড়ি থেকে গলাধাক্কা দিয়ে ও মেরে জখম করে বের করে দিয়ে ঘরে তালা ঝুলিয়ে দখল করেছে। বুড়া বয়সে এখন আমি কোথায় যাব? আমি মা হয়ে এই ছেলের বিচার চাই।’

মায়ের এমন অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চেয়ে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলে লালনের ফোন নম্বর টি ও বন্ধ পাওয়া গেছে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments