বিক্ষোভে অংশ নেওয়ায় মৃত্যুদণ্ডের ঝুঁকিতে সৌদি কিশোর

আলোকিত সকাল ডেস্ক

সৌদিতে মানবাধিকার আদায়ে একটি বিক্ষোভে অংশ নেওয়ার অভিযোগে কিশোর মুর্তজা কুয়েরিসকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

অ্যামনেস্টি জানিয়েছে, বিক্ষোভে অংশগ্রহণসহ কয়েকটি অভিযোগে ২০১৪ সালে ১৩ বছর বয়সী মুর্তজাকে গ্রেপ্তার করে সৌদি পুলিশ। মুর্তজার বর্তমান বয়স ১৮ বছর। এখন তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে নিশ্চিত করেছে সৌদি আরবের পাবলিক প্রসিকিউশন।

২০১১ সালে সৌদি আরবের পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় রাস্তায় নেমেছিল ১০ বছরের মুর্তজা কুয়েরিস। ৩০ শিশুকে সঙ্গে নিয়ে মুর্তজা স্লোগান দিয়েছিল ‘জনগণকে মানবাধিকার দিতে হবে’। ওই ঘটনার তিন বছরের মাথায় গ্রেফতার হয় মুর্তজা। ওই সময় পরিবারের সঙ্গে বাহরাইন যাচ্ছিল সে। আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মীরা তাকে আখ্যা দিয়েছিল ‘সবচেয়ে কমবয়সী রাজনৈতিক বন্দী’ হিসেবে।

অ্যামনেস্টির মধ্যপ্রাচ্য গবেষণা বিভাগের পরিচালক লিন মালৌফ বলেন, ‌নাগরিকদের বিক্ষোভকে দমন করার জন্য যেকোনো কিছু করতে প্রস্তুত সৌদি আরব কর্তৃপক্ষ। এমনকি নিতান্তই শিশুদেরও গ্রেপ্তার করে মৃত্যুদণ্ড দিতে পারে সৌদি প্রশাসন। সৌদির মৃত্যুদণ্ডকে দমনের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার বন্ধ করতে আন্তর্জাতিক গোষ্ঠীর একজোট হয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী ১৮ বছরের নিচে কেউ অপরাধী প্রমাণিত হলে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া যাবে না।

অ্যামনেস্টির প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে মুর্তজাকে গ্রেপ্তার করে আল-দাম্মামের একটি কিশোর সংশোধন কেন্দ্রে রাখা হয়। এক মাস তাকে সেখানে আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতন করা হয়।

মুর্তজার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো হলো ‘রাজ্যবিরোধী বিক্ষোভে অংশ নেওয়া, জঙ্গি সংগঠনে অংশ নেওয়া বড় ভাইয়ের জানাজায় অংশ নেওয়া, পুলিশ স্টেশনে ককটেল বোমা ছুঁড়ে মারা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর গুলি করা।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box