বগুড়া শেরপুরে বৈদ্যুতিক খুঁটি যেন মরণ ফাঁদে পরিণত

বগুড়া প্রতিনিধি

বগুড়ার শেরপুরে নর্দান ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানী লিমিটেডের বৈদ্যুতিক খুঁটির গোড়ায় মাটি না দিয়ে খুঁটির গোড়া আলগা রেখে মরণ ফাঁদে পরিণত করা হয়েছে।এভাবে মহাসড়কের পার্শ্বে খুঁটিগুলোর গোড়ায় মাটি না দিয়ে খুঁটিগুলোকে নামে মাত্র দাঁড় করিয়ে বরং তারের সাথে ঝুলিয়ে রাখায় ঐ রাস্তাগুলো দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচলের পাশাপাশি রাস্তা সংলগ্ন বাসা-বাড়িতে ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে এলাকাবাসী।

তাছাড়া মহাসড়কের ঔ ঝুঁকিপূর্ণ অংশগুলোতে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছে শতশত যানবাহন ও পথচারী। এরফলে যেকোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশংকা তৈরী হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার কাঁঠালতলা চাউলকল মালিক সমিতির অফিস সংলগ্ন একটিসহ খন্দকারপাড়া, খন্দকার টোলা এলাকার বেশ কয়েকটি বৈদ্যুতিক খুটিগুলো বৈদ্যুতিক লাইন সঞ্চালণের জন্য খুটির গোড়ায় সামান্য মাটি দিয়ে খুুটিগুলোকে দাঁড়িয়ে রাখা হয়েছে।

খুঁটির গোড়ায় মাটি না থাকায় যে কোন সময় খুটিগুলো দোকান, বাড়ীঘর, যানবাহন বা পথচারীদের ওপর পড়ে বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। মাটি স্বল্পতার কারণে খুঁটিগুলো যেন একেকটি মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।এলাকাবাসী জানায়, বহুদিন ধরেই এই খুঁটি হেলে পড়ায় এবং খুঁটির গোড়ায় গর্ত করে রাখায় আমরা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই বসবাস এবং এ পথে চলাফেরা করছি। এই অনিরাপদ খুঁটির বিষয়ে স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিসে বারবার মৌখিক অভিযোগ করলেও আমাদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করা হচ্ছে।

এমনকি তারা কৌশল হিসেবে বলার চেষ্টা করছে যে, এলাকার লোকজনই খুঁটির গোড়ার মাটি সরিয়ে রেখেছে। আব্দুল ওয়াহাব নামের এক ব্যাক্তি জানান, খন্দকার টোলার এই ব্যস্ত সড়কে দৈনিক শত শত যানবাহন সহ হাজার হাজার মানুষের যাতায়াত। এই খুঁটির বিষয়ে স্থানীয় বিদ্যুৎ অফিসে বারবার মৌখিক অভিযোগ করার পরও কোন প্রতিকার হয়নি। দীর্ঘ ছয় মাস যাবৎ আমরা এলাকাবাসী মৃত্যু ঝুকিতে বসবাস করছি।

ভূইয়া মাহবুব লতিফ জানান, বৈদ্যুতিক খুঁটিটি এখনো যে দাঁড়িয়ে আছে, আমি তাতেই আশ্চর্য হচ্ছি। এটা দেখে মনে হয় বৈদ্যুতিক খুঁটি নয় এ যেন মরণ ফাঁদ ।নর্দান ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানী লিমিটেডের কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব অবহেলা আর উদাসিনতায় যে কোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার শিকার হতে পারে সাধারণ মানুষ।

এ বিষয়ে শেরপুর নেসকো লি. এর নির্বাহী প্রকৌশলী ফরিদ হাসানের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি অফিসে যেতে বলেন, পরবর্তীতে অফিসে গেলে গণমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গেও তিনি অসৌজন্যমূলক আচরণ করে বলেন, কেউ নাশকতা করার জন্য পরিকল্পিতভাবে খুঁটির গোড়ায় গর্ত কওে রেখেছে। তিনি আরও বলেন এ দায়িত্ব আমাদের না একটি কোম্পানি ক্রয় করে পরিচালনা করছে তাদের দায়িত্ব।

আস/এসআইসু

Facebook Comments