ফাঁকা ঢাকা এখন স্থবির, সুনসান, কর্মব্যস্ততাহীন

আলোকিত সকাল ডেস্ক

সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা। ঢাকা শহরের যেখানেই যাওয়া যায় কর্মকোলাহল, মানুষের ভিড়, কলকারখানা আর যানবাহনের কাল জ্বালা করা বিরামহীন আওয়াজ আছেই। এ চিত্র বছরের প্রায় প্রতিদিনই। কিন্তু একমাত্র ঈদ এলেই অচেনা রূপে হাজির হয় ইটপাথরের এই মহানগরী। যখন থাকেনা কোনও অস্থিরতা, থাকেনা কর্মকোলাহ কিংবা নগরবাসীর ছুটে চলা। ঈদের এই কটা দিন যারা ঢাকায় আছেন তাদের সুযোগ হয়ে অন্য এক ঢাকাকে দেখে নেয়ার।

প্রাণচঞ্চল ঢাকায় নেই এখন কর্মব্যস্ততা। ব্যস্ত নগরী ঢাকা এখন ফাঁকা। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঢাকা ছেড়েছেন কয়েক লাখ মানুষ। ঈদের ছুটিতে চিরচেনা সেই ব্যস্ত নগরীর রূপ হারিয়ে গেছে। ফাঁকা হয়ে গেছে ঢাকা।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) ঈদের ২য় দিন। রাজধানীতে নেই দীর্ঘ যানজট আর গাড়ির সেই শব্দ। নেই পথে পথে দুর্ভোগ, রাস্তা বা ফুটপাথে পথচারীদের ভিড়। সেই অসহ্য যানজটের ঢাকার ব্যস্ততম সড়কগুলোও এখন ফাঁকা পড়ে আছে। তার বুক চিরে যাচ্ছে না কোনও পথিক কিংবা ভাড়ি যানবাহন।

সরেজমিনে দেখা যায়, ব্যস্ততম এলাকা কারওয়ান বাজার, ধানমন্ডি, গুলশান, ফার্মগেট কোথাও যানজট নেই। রাস্তার ওপর এখন রিকশার রাজত্ব। যাত্রীবাহী লোকাল বাসের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে টুংটাং শব্দে রিকশা চলছে নগরীর সড়কগুলোতে।

প্রতিদিন যে এলাকা লাখো মানুষের পদচারণায় মুখরিত থাকে, কালো ধোঁয়া আর যানজট যে স্থানটিকে প্রায়ই নাকাল করে তোলে সেই বাণিজ্যিক এলাকা মতিঝিলে নীরবতা নেমে এসেছে।

রাজধানীর সড়ক ফাঁকা থাকলেও নগরবাসী ভিড় করেছে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে মানুষের ব্যাপক জটলা লক্ষ করা গেছে।

রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা লাভলু ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আমরা এ রকম ফাঁকা ঢাকা দেখতে চাই। যেখানে কোনও যানজট থাকবে না। ফাঁকা ঢাকায় ঘুরতে ও চলাচল করতে বেশ ভালো লাগছে। এমন ফাঁকা ঢাকা যদিও বেশিদিন থাকবে না। ঈদের ছুটি শেষে ফের চেনা রূপে ফিরবে ক্ষণিকের এই অচেনা ঢাকা।’

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box