প্রয়োজন ছাড়াই সেতু!

আলোকিত সকাল ডেস্ক

একপাশে তাড়াশ-মহিষলুটি আঞ্চলিক সড়ক, আরেক পাশে বিস্তীর্ণ ফসলি জমির মাঠ। আশপাশে তেমন বসতঘরও নেই। পানি প্রবাহের পথও দুইদিক থেকেই বন্ধ।

তবুও নির্মাণ করা হয়েছে সেতু। কাদের জন্য আর কিসের প্রয়োজনে সেতুটি করা হয়েছে তা জানা নেই স্থানীয়দেরও। তবে স্থানীয় রহিজউদ্দিন, আখলেছুর রহমান, কোরবান আলী, সাজেদুল ইসলাম, জহুরুল ইসলাম, রোকেয়া পারভিন ও শ্যামলী খাতুন জানান, সেতুটি কারো কোনো কাজে আসছে না। কোনো রকমের প্রয়োজন ছাড়াই সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। তাড়াশ-মহিষলুটি আঞ্চলিক সড়কের ছয় কিলোমিটার সাইট খালের প্রায় সবটাই দখলদাররা দখল নিয়ে বসতঘর ও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান করে রেখেছেন। পানি প্রবাহের বিন্দুমাত্র সুযোগ নেই। একপাশে সড়ক থাকলেও আরেক পাশে শুধুই ফসলি জমি। সেতুটি দিয়ে এপার ওপার কোথাও যাওয়ার উপায় নেই।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. নুর মামুন বলেন, সেতুটি এখন কারো কাজে আসছে না ঠিকই। তবে তাড়াশ-মহিষলুটি আঞ্চলিক সড়ক থেকে মান্নাননগর-রানীহাট পর্যন্ত একটি নতুন গ্রামীণ সড়ক নির্মিত হলে ঐ সেতু দিয়ে জনসাধারণের চলাচলের সুবিধা হবে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box