প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নদী ভাঙ্গন নিয়ে খুব চিন্তিত থাকেন” – পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এমপি

আবু সুফী, স্টাফ রিপোর্টার : ব্রাহ্মণবাড়িয়া -৫ নবীনগরের স্থানীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ এবাদুল করিম বুলবুল এম.পি’র আমন্ত্রনে ২৮ শে জুলাই রবিবার দুপুরে মাননীয় পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারক এম.পি উপজেলার চিত্রি, নবীপুর ও চরলাপাং,বীরগাঁও ইউনিয়নের বাইশমৌজা, নজরদৌলত, কেদারখোলা ও দাসকান্দি ও পশ্চিম ইউনিয়ন বড়িকান্দি লঞ্চঘাটের পূর্ব পাশের বাধ থেকে মানিকনগর বাজার পর্যন্ত প্রায় দুই কিলোমিটার ও বড়িকান্দি লঞ্চঘাটের পচ্চিম পাশের বাধ থেকে ধরাভাঙ্গা এম.পি টিলা পর্যন্ত প্রায় ২৭০০ মিটার এলাকায় নদী ভাঙ্গনে কবলে ক্ষতিগ্রস্ত বসতবাড়ি, ফসলী জমি,গাছপালাসহ ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

নদীর ভাঙ্গন পরিদর্শন শেষে রবিবার দুপুরে বড়িকান্দি লঞ্চঘাটে আয়োজিত পথসভায় পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক এম.পি বলেন – “যখন আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত, নেপাল ও চীনের পাহাড়ি পানির ঢল নামতে থাকে তখন আমাদের দেশের বিভিন্ন নদ নদীর পাড়ে যারা বসত করেন তাদের ঘর-বাড়ি নদী ভাঙনের কবলে পড়ে বিলীন হয়। আর এজন্য প্রতিবছরই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নদী ভাঙ্গন নিয়ে খুব চিন্তিত থাকেন। সরকারের উন্নয়নের কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, আপনারা ভাগ্যবান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মতো একজন নেত্রী পেয়েছেন। তিনি যদি সুস্থ থাকেন, আরও দেশ পরিচালনা করতে পারেন তাহলে বাংলাদেশ কোথায় যাবে তা কল্পনা করা যাবে না। ২১ সালের মধ্যে দেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে দেশ সমৃদ্ধশালী দেশে পরিনত হবে”।

তিনি আরো বলেন – ” মেঘনা নদীর ভাঙ্গন অতি শ্রীঘই বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে এই ভাঙ্গন রোধের কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন বলে বড়িকান্দি,ধরাভাঙ্গা,মুক্তারামপুর, সোনাবালুয়া, নুরজাহানপুর ও শ্রীঘর কান্দাপাড়া গ্রামের হাজার হাজার লোকজনকে আশ্বাস প্রদান করেন।

এ সময় মন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর) আসনের সংসদ সদস্য এবাদুল করিম বুলবুল,পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মাহফুজুর রহমান, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হালিম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মনির, জেলা পরিষদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা বোরহান উদ্দিন আহমেদ নসু , জেলা পরিষদ সদস্য অধ্যাপক নুরুন্নাহার বেগম, ভাইস চেয়ারম্যান জাকির হোসেন সাদেক, বীরমুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা সফিউল আলম,ভাইস চেয়ারম্যান শিউলী রহমান,সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন সরকার। উক্ত পথসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম। এ সময় স্থানীয় দলীয় নেতা,নজরুল ইসলাম নজু, মাইনুল হক সিকদার, লুৎফর রহমান লাল মিয়া,মুক্তার হোসেন, সাবেক যুগ্ম সচিব মতিউর রহমান( জায়েদ), হেলালউদ্দিন ভূইয়া, স্থানীয় চেয়ারম্যান মেম্বার দলীয় নেতাকর্মী ও নের্তৃস্থানীয়রা উপস্থিত ছিলেন।

আস/এসআইসু

Facebook Comments