নোয়াখালীর বিশাল সেন্টার ও শখসহ ১০ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে জরিমানা

মাইজদী সদর প্রতিনিধি

নোয়াখালীর জেলা শহর মাইজদীতে বিশাল সেন্টার ও শখসহ পৌর বাজারের ১০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রোকনুজ্জামান খানের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে সহযোগিতা করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রুহুল আমিন।

অভিযান মোট ১ লাখ ১৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

রোকনুজ্জামান খান আলোকিত সকালকে বলেন, ‘ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের বিভিন্ন ধারায় বিশাল সেন্টারকে ২০ হাজার, শখকে ৩০ হাজার সহ পৌর বাজারের ১০টি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানকে ১ লাখ ১৮ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়।’

রোকনুজ্জামান খান জানান, গোপন খবরের ভিত্তিতে জনস্বার্থে পরিচালিত এ অভিযানকালে দেখা যায়, এসব ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে মূল্য তালিকা টানানো নেই, মূল্য তালিকা টেম্পারিং, কিছু পণ্যের মূল্য তালিকা রয়েছে, মূল্য তালিকার অধিক মূল্য আদায়, প্রতিশ্রুত সেবা প্রদান না করা, পণ্যে আমদারিকারকের সিল না থাকা, মেয়াদ উত্তীর্ণ ও ক্ষতিকর পণ্য বিক্রির উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ, ক্রয় মূল্যের চেয়ে প্রায় শতকরা ৪০-৫৫ভাগ অতিরিক্ত মূল্য আদায়, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা জানার পরও নিম্নমানের ৫২টি পণ্যের বিভিন্ন পণ্য বিক্রির উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন, পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন নোয়াখালীর দাম নির্দিষ্ট করে দেওয়া পণ্যে নির্ধারিত দামের চেয়ে অতিরিক্ত দামে পণ্য বিক্রয়, পণ্য সংরক্ষণ ও প্রদর্শনে দায়িত্ব অবহেলা, জীবন বিপন্নকারী কার্য ইত্যাদি যা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০, ৪১, ৪২, ৪৩, ৫১, ৫২ ও ৫৩ ধারায় অপরাধ।

মহামান্য হাইকোর্টের দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ী আগামীকাল শুক্রবারের (১৭ মে) মধ্যে নির্দিষ্ট করে দেওয়া ৫২টি নিম্নমানের পণ্য ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান থেকে সরিয়ে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হয়। প্রাপ্ত নিম্নমানের বেশ কিছু পণ্য জব্দ ও ধ্বংস করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় দোকানি ও সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এসব পণ্য সম্পর্কে বিস্তারিত বলা হয় এবং দোকানিদের এসব পণ্য সংরক্ষণ না করা ও ক্রেতাদের এসব পণ্য না ক্রয়ের জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়। নিত্য প্রয়োজনীয় নিম্নমানের ভোগ্য পণ্য ও অন্যান্য পণ্য সম্পর্কে যে কোনও অভিযোগ তাৎক্ষণিকভাবে জেলা প্রশাসন নোয়াখালী ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কার্যালয়ে জানানোর জন্য অনুরোধ করা হয়।

জরিমানা থেকে আদায় টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করার জন্য এক্সিকিউটিভ কোর্ট পেশকার শাহাদৎ হোসেন শুভকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে প্রসিকিউশনের দায়িত্বে ছিলেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর নোয়াখালী কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা। এসময় আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সহযোগিতা করে সুধারাম থানা পুলিশ।

আস/এসআইসু

Facebook Comments