নবীনগরে সরকারি খাল ভরাট করে দোকান নির্মাণের ফলে জলাবদ্ধতা, পানিবন্দি শতাধিক পরিবার

আবু সুফী, স্টাফ রিপোর্টার

নবীনগর উপজেলার বিটঘর ইউনিয়নের অন্তভূক্ত ১৪৯নং সমষপুর মৌজার বিএস ০১নং খতিয়ানভূক্ত ১৪৬১দাগের খাল এবং ১৩৬৫ দাগের ডোবা, ( ১)মোঃ মোবারক হোসেন (৫০), পিতা- আবু বকর সিদ্দিক (২) ইকবাল হোসেন (৪৫), পিতা- আবু বকর সিদ্দিক (৩) মনির মিয়া (৩৭) পিতা- মৃত জয়দুল হোসেন মেম্বার(৪) আমান মিয়া (৩৫) পিতা- মৃত জয়দূল হোসেন মেম্বার সর্বসাং – বিটঘর, উপজেলা- নবীনগর, জেলা- ব্রাক্ষণবাড়িয়া, কর্তৃক অবৈবভাবে ড্রেজার দ্বারা বালু ভরাট করে দোকানঘর নির্মানের খবর পেয়ে উত্তম কুমার দাস বিটঘর ইউনিয়ন ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা ও চম্পা রানী দাস অফিস সহায়ক বিটঘর ইউনিয়ন ভূমি অফিস বাধা প্রদান করলে দখলকারীগণ হুমকি দামকি দেওয়ায় নবীনগর থানা অফিসার ইনচার্জ বরাবর বিটঘর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ শাহ আলম বাদী হয়ে উপরোল্লিখিত চারজন দখলদারিগণকে বিবাদী করিয়া উত্তম কুমার দাস ও চম্পা রানীর স্বাক্ষরিত যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে ১২/১২/২০১৮ইং এজাহার দায়ের করেন।

এজাহারে আরো উল্লেখ্য যে, বাধা অমান্য করে জোরপূর্বক ভরাট ও দোকান নির্মানের পায়তারা করতেছে, প্রবাহমান সরকারী খাল বালু ফেলে ভরাট করলে পানি প্রবাহে ও নিষ্কাশনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হওয়াসহ সরকারী স্বার্থ তথা জনস্বার্থে ব্যাপক ক্ষতি সাধন হবে।

শুষ্ক মৌসুমে খালের পানি দিয়ে ফসলী জমিতে পানি সেচ দেয়া হয়। খালটি ভরাট হলে বর্ষায় এলাকার পানি নিষ্কাশন বন্ধ হয়ে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে। এর ফলে এলাকায় দাঙ্গা হাঙ্গামা সৃষ্টির আশংকা রয়েছে এবং আইন- শৃঙ্খলা পরিস্হিতি অবনতির সম্ভাবনা রয়েছে। তাদের এধরনের অবৈধ ও অনৈতিক কর্মকান্ড সরকারী কাজের বিঘ্ন ঘটায় যা রাষ্ট্রীয় আইন বিরোধী ও জনস্বার্থের জন্য হুমকি ও ক্ষতিকর বটে।

এমতাবস্থায় জনস্বার্থে ও আইন বিরোধী কর্মকান্ডের মাধ্যমে অবৈধ উপায়ে ০১নং খাস খতিয়ানভূক্ত ভূমিতে অনুপ্রবেশের চেষ্টার দায়ে বিবাদীগণের বিরুদ্ধে জরুরী ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্হা গ্রহনের জন্য অনুরোধ করেন বিটঘর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ শাহ আলম। বর্তমান সরকারী খাল ভরাট করে দোকান নির্মানের ফলে জলাবদ্ধতা, শতাধিক পরিবার পানিবন্দী।

আস/এসআইসু

Facebook Comments