নওগাঁয় চোরকে ছেড়ে দেয়ার অভিযোগে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ ও সমাবেশ

আবু রায়হান রাসেল, নওগাঁ প্রতিনিধি

নওগাঁর মহাদেবপুরে নওহাটা ফাঁরি পুলিশে সোপর্দ করার পর মামলা না নিয়ে চোর মো. মিথুনকে (২৬) ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি জানাজানি হলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ ও সমাবেশ পালন করেছেন দোকানের মালিকরা। প্রতিবাদ ও সমাবেশের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ ওই চোরকে দ্রুত আটকের আশ্বাস দেন। তবে ব্যবসায়ীরা দ্রুত ওই চোর ও জড়িত পুলিশদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে। ওই চোর মিথুন একই উপজেলার সরস্বতীপুর খাঁ-পাড়া গ্রামের চয়েন উদ্দীনের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সরস্বতীপুরহাট বাজারের মেসার্স আল-আকসা ট্রেডার্স নামক একটি ধানের আড়ৎ ঘরের তালা ভেঙ্গে গত বুধবার রাতে ভ্যান যোগে ধান চুরি করার সময় মিথুনকে আটক করেন ব্যবসায়ীরা। এ সময় মিথুনকে নিয়ে নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক হুমায়নকে জানান ব্যবসায়ীরা।

এরপর পুলিশ রাত সাড়ে ১১ টার দিকে ফাঁড়ি ইনচার্জ হুমায়নের নির্দেশে ফাঁড়ির এসআই মেহেদী ও কনেষ্টবল ফারুক ঘটনাস্থলে আসেন। ব্যবসায়ীরা আটককৃত চোরকে পুলিশ সদস্যদের কাছে সোর্পদ করেন। মিথুনের দেয়া তথ্য মতে বৃহস্পতিবার সকালে অপর সহযোগী শাকিল হোসেনকেও আটক করেন ব্যবসায়ীরা। আটকের পর শাকিলকে ও নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়িতে সোর্পদ করেন।

মেসার্স- আল-আকসা ট্রেডার্স এর মালিক সানোয়ার হোসেন জানান, প্রথম চুরির ঘটনাটি ঘটেছে ১২ মে দিবাগত রাতে। সে সময় চোরেরা তালা ভেঙ্গে নগদ ৯ হাজার ৫ শত ২০ টাকাসহ একটি কম্পিউটার ও একটি টাচ মোবাইল ফোন চুরি করে নিয়ে যায়। বুধবার ধান চুরি করার সময় চোর মিথুনকে আটকেরপর কিছু তথ্য প্রকাশ করার পর শাকিল হোসেন আটক করে পুলিশের কাছে সোর্পদ করা হয়।

তিনি আরো বলেন, থানায় চুরি মামলা দায়ের করতে যাব সে সময় দেখি পুলিশে সোর্পদকৃত চোর মিথুন এসে বাজারে ঘোরাফেরা করছে। ঘটনাটি দেখে বাজারের ব্যবসায়ীরা চমকে যাই।

এ ঘটনায় বাজার বনিক সমিতির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে জরুরী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরপর মাইক দিয়ে প্রচার চালিয়ে বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টায় সরস্বতীপুরহাট বাজারের সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে প্রতিবাদ ও সমাবেশ পালন করেন ব্যবসায়ীরা। সংবাদ পেয়ে নওহাটামোড় পুলিশ ফাড়ির এসআই ফরিদ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে বাজারে আসেন এবং ব্যবসায়ীদের দাবীর মুখে ছেড়ে দেয়া চোরকে ফের আটকের আশ্বাস দেন।

এসআই ফরিদ বাজারের ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ছেড়ে দেয়া চোরকে অবশ্যই দ্রুত আটক করা হবে। আপনারা সবাই নিজ নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলেন।

সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক জানান, এসআই ফরিদ চোরকে পুনরায় আটক করার আশ্বাস দিলে বাজার বণিক সমিতি বিকাল ৬ টায় মাইক দিয়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেয়ার এক ঘন্টা পর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলেন।

তিনি আরো জানান, নওহাটা ফাঁড়ি পুলিশের কাছে সোর্পদ করার ১০/১২ ঘন্টার ব্যবধানেই ব্যবসায়ীদের না জানিয়ে চোরকে পুলিশ ছেড়ে দেয়ার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠে ঘন্টা ব্যাপী ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে রাখেন ব্যবসায়ীরা। দ্রুত ওই চোর ও জড়িত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানানো হয়েছে।

নওহাটামোড় ফাঁড়ি ইনচার্জ ইন্সপেক্টর হুমায়ন জানান, থানায় মিথুনকে সোপর্দ করা হয়েছে। মিথুনের দাদি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মহোদয়ের কাছে তার জন্যে ক্ষমা চাইলে প্রথম বারের মতো ক্ষমা করে দেন। এরপর মিথুন ওই সরস্বতীপুর বাজারে গেলে বণিক সমিতির লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে দোকান বন্ধ করেন।

মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি সাজ্জাদ হোসেন জানান, মিথুন নামে কোন আসামীকে আটক করা হয়নি। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে প্রতিবাদ ও সমাবেশ পালন করা হয়েছে নাকি জানা নেই। তবে কেই অভিযোগ করলে বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা হবে।

উল্লেখ্য, নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়ি এলাকায় নওহাটামোড় বাজারসহ মাত্র দু’মাসের ব্যবধানে ৪টি কিটনাশকের ও একটি মুদিখানা দোকানের তালাভেঙ্গে ৬ বার চুরি সংঘঠিত হয়েছে। এ ছাড়াও চৌমাশিয়া গ্রামের পল্লী চিকিৎসক ও কৃষক প্রবীর কুমার মন্ডলের ইটের তৈরী গোয়াল ঘড়ে সীদ কেটে একটি গাভী ও বাছুর ৪টি গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments