ধারাবাহিকতা আর অনিশ্চয়তার লড়াই

আলোকিত সকাল ডেস্ক

দুই দলেরই শেষ ম্যাচটি স্নায়ুর ভীষণ পরীক্ষা নিয়ে গেছে। পার্থক্য বলতে কার্লোস ব্রাথওয়েটের সেই অবিশ্বাস্য ইনিংসের পরও ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফিরেছে হার নিয়ে। ভারত আফগানদের হাতে ধরা দিতে দিতেও দেয়নি। দুই দলের চরিত্রও তাতে স্পষ্ট। ওয়েস্ট ইন্ডিজ পুরনো উত্থান-পতনের পথেই, ভারত টুর্নামেন্টে এখনো অপরাজিত। আজ জিতলে সেমিফাইনালের আরো কাছে চলে যাবে তারা, অন্যদিকে ক্যারিবীয়দের টিকে থাকার লড়াই। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে এমন এক ম্যাচের আগের দিন ক্রিস গেইল বোমা ফাটালেন।

গেইল ব্যাট হাতে এখনো সেই ঝড় তুলতে পারেননি বিশ্বকাপে। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৮৪ বলে ৮৭ রানের ইনিংসটা শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ ইনিংসই। দলকে যে জয়ের পথ দেখাতে পারেনি। সেই গেইল কাল মিডিয়ার সামনে বড় আলোচনার খোরাক জোগালেন, ‘বিশ্বকাপ শেষে অবসরে যাচ্ছি না’ বলে। এমনই কথা ছিল, ৩৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার এই বিশ্বকাপের শেষ ওয়ানডে খেলবেন বলে জানিয়েছিলেন। কিন্তু কাল বেমালুম সেই কথা উল্টে দিলেন, ‘এই বিশ্বকাপ শেষে ভারতের বিপক্ষে একটি টেস্ট খেলব, আর অবশ্যই ওয়ানডে সিরিজটা খেলব, তবে টি-টোয়েন্টি নয়।’ ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে এসে যে খবর শুনে বিস্মিত খোদ ক্যারিবীয় অধিনায়ক জেসন হোল্ডার, ‘আমি এইমাত্রই এটা জানলাম। ফিরে অবশ্যই ওর সঙ্গে কথা বলব। ড্রেসিংরুমে তো এ রকম কিছুই ও আমাদের জানাল না। তবে হ্যাঁ, এটা দারুণ ব্যাপার হবে, ক্রিকেটের জন্যই হবে বিশেষ কিছু।’ টুর্নামেন্টে টিকে থাকতে হলেও আজ গেইলদের করতে হবে বিশেষ কিছু। হোল্ডারের কাছে এই বিশেষ কিছু অবশ্য সব বিভাগে সবার একসঙ্গে জ্বলে ওঠা, ‘আমরা আমাদের সামর্থ্য দেখিয়েছি নানাভাবে। কিন্তু কোনো ম্যাচে পরিপূর্ণ পারফরম্যান্স দেখাতে পারিনি। কাল (আজ) আবার আরেকটি সুযোগ পাচ্ছি আমরা নিজেদের প্রমাণের।’ গেইল নিজেও আশাবাদী ভারতের মতো প্রতিপক্ষের বিপক্ষেই নিজেদের ফিরে পাবেন বলে, ‘ভারতের সামর্থ্য আমরা জানি। আশা করি কাল আমরা ওদের হারাব। এখনো সেমিফাইনালে ওঠার ক্ষীণ সুযোগ আছে আমাদের সামনে। তার জন্য এই ম্যাচে দুটি পয়েন্ট ভীষণ জরুরি।’

ভারতের ব্যাটিং সামর্থ্য নিয়ে কারো সংশয় নেই। বিশ্বকাপের এই দলটি বোলিংয়েও যে কতটা কার্যকরী তা আগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ ম্যাচেই তারা দেখিয়েছে মাত্র ২২৪ রানের পুঁজিতে ম্যাচ জিতে। সেই ম্যাচে হ্যাটট্রিক করা মোহাম্মদ সামি আজও একাদশে জায়গা ধরে রাখার দাবিদার। ভুবনেশ্বর কুমার ফেরেন কি না, সেটাও দেখার। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে পড়া ভুবি কাল অবশ্য নেটে বল করেছিলেন। ঝিরিঝিরি বৃষ্টির কারণে বাইরে অনুশীলন করা সম্ভব হয়নি ভারতের। ইনডোরে ব্যাটিং অনুশীলনে দেখা গেছে বিরাট কোহলিকেও। তাঁর সঙ্গী ছিলেন বিজয় শঙ্কর ও রবীন্দ্র জাদেজা। মূলত শর্ট বলে ব্যাটিং অনুশীলন করেছেন এদিন বিজয়। এই টুর্নামেন্টে ক্যারিবীয় ফাস্ট বোলারদের সেটিই মূল অস্ত্র। হুক, পুলের খেলাটা তাই লাগবেই ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের। জাদেজা এখনো কোনো ম্যাচ খেলেননি, তাঁর অন্তর্ভুক্তি ভারতীয় ব্যাটিং লাইনআপকে আরো লম্বা করবে নিঃসন্দেহে। তবে ভারতের এই মুহূর্তে মিডল অর্ডারের ব্যাটিং নিয়েই বেশি ভাবনা। মহেন্দ্র সিং ধোনি দ্বিতীয় পাওয়ার প্লে-টা কাজে লাগাতে পারছেন না, আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচেই ২৮ রান করেছেন ৫২ বল খেলে, ধোনির কাছে যা মোটেও প্রত্যাশিত না। আনপ্রেডিক্টেবল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিনি কিভাবে সামলে নেন সেটাও দেখার অপেক্ষা।

ওদিকে ভারতীয় বোলাররা গেইল, শাই হোপ ছাড়াও তৈরি হচ্ছিলেন লোয়ার মিডল অর্ডারে আন্দ্রে রাসেল ঝড় সামলানোর জন্য। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচের আগে হাঁটুর ইনজুরিতে বিশ্বকাপই যে শেষ হয়ে গেছে আইপিএল মাতানো এই অলরাউন্ডারের। ক্রিকইনফো

আস/এসআইসু

Facebook Comments