ঝুঁকি নিয়েই চলছে ভারী যানবাহন

আলোকিত সকাল ডেস্ক

চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর যাতায়াতের একমাত্র সড়কের চুয়াডাঙ্গা সদরের মাথাভাঙ্গা নদীর উপরের দীর্ঘ দিনের পুরাতন ডাবল লেনের সেতুটির মাঝের অংশে ভেঙে পড়েছে। এতে সেতুটির উপর দিয়ে সকল ধরনের ভারী যান বাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়। দুই জেলার একমাত্র সংযোগ সেতুটির মাঝের অংশ ভেঙে পড়ায় দামুড়হুদার মাথাভাঙ্গা ও গলায়দড়ী স্টিলের সেতুর ওপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে অবাধে চলাচল করছে মেহেরপুর-ঢাকা পরিবহনসহ চুয়াডাঙ্গা মেহেরপুরগামী ভারী যানবাহন। এতে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

১৯৬০ সালে চুয়াডাঙ্গা শহরের পশ্চিম পাশে মাথাভাঙ্গা নদীর উপর ১৪০ মিটার দৈর্ঘ্যের ব্রিজটি নির্মিত হয়। যা চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর জেলার একমাত্র সংযোগ সেতু। ২০১৫ সালে সেতুটির মাঝের কিছু অংশে ধস দেখা দেয়। পরবর্তীতে ২০১৮ সালে আরেক অংশ ধসে যায়। সর্বশেষ চলতি বছরের ১১ জুন সেতুটির মাঝের একাংশ ধসে পড়ায় চুয়াডাঙ্গার সঙ্গে মেহেরপুর সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছে দুই জেলার লাখো মানুষ।

বর্তমানে সেতুটি বন্ধ থাকার কারণে ওই সড়কের যানবাহনগুলোকে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ভালাইপুর হয়ে দামুড়হুদার রামনগর, কলাবাড়ী হয়ে কার্পাসডাঙ্গা মুজিবনগর যেতে হচ্ছে। আবার ঢাকা থেকে ফেরার পথে মেহেরপুরগামী পরিবহনসহ ভারী যানবাহনগুলো দামুড়হুদার পুড়াপাড়া হয়ে বিষ্মপুর অথবা দামুড়হুদা সদরের ঝুঁকিপূর্ণ মাথাভাঙ্গা সেতুর উপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে দীর্ঘপথ ঘুরে ভালাইপুর হয়ে মেহেরপুর যেতে হচ্ছে। একইভাবে ঢাকা ঝিনাইদহ-কালিগঞ্জ হয়ে মেহেরপুরগামী যানবাহন দামুড়হুদার দর্শনা গলাইদড়ী নামক স্থানের দীর্ঘ দিন ঝুঁকিপূর্ণ স্টিলের সেতুর ওপর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। সেতু দুটির ওপর বাড়তি চাপ পড়ায় যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।

দামুড়হুদা ওদুদ শাহা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ কামাল উদ্দীন বলেন, চুয়াডাঙ্গা থেকে মেহেরপুর যাতায়াতের চুয়াডাঙ্গা বড়বাজারের মাথাভাঙ্গা নদীর উপরের সেতুটির মাঝের অংশ ভেঙে যাওয়ায় দামুড়হুদা কার্পাসডাঙ্গা ভায়া মুজিবনগর যাতায়াতের দামুড়হুদা মাথাভাঙ্গা নদীর উপর ঝুঁকিপূর্ণ একমাত্র সেতুটির উপর বাড়তি চাপ পড়ায় যে কোনো সময় ধসে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এই সেতুটি বন্ধ হয়ে গেলে এই এলাকার মানুষজনের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করবে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments