ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টায় বিএনপি

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বর্তমান পরিস্থিতিতে দলকে সংগঠিত করে ফের ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে বিএনপি। এজন্য জেলা কমিটিগুলো পুনর্গঠনের কাজ দ্রুত শেষ করতে চায় দলটি। একই সঙ্গে অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোকেও ঢেলে সাজানো হচ্ছে। এছাড়া তৃণমূলে পুনর্গঠনের পর জাতীয় কাউন্সিলেরও পরিকল্পনা রয়েছে বিএনপির। তবে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির আগে এ কাউন্সিলের সম্ভাবনা নেই। এর আগে স্থায়ী কমিটির শূন্য পদগুলো পূরণ করা হতে পারে বলেও আভাস পাওয়া গেছে।

দল পুনর্গঠন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, দলের তৃণমূল পুনর্গঠনের কাজ অল্প দিনের মধ্যেই শেষ হবে। সরাসরি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের তত্ত্বাবধানে এ পুনর্গঠনের কাজ চলছে। তিনি বলেন, কোথাও আগের কমিটি পুনর্গঠন আবার কোথায় পুরোনো কমিটি ভেঙে নতুন কমিটি দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে অঙ্গও সহযোগী সংগঠনগুলোরও পুনর্গঠন কাজ চলছে। তৃণমূলে পুনর্গঠনের পর জাতীয় কাউন্সিল হবে। ম্যাডামের মুক্তির পর এ কাউন্সিল হবে বলে আমরা আশা করছি।

দলীয় সূত্র মতে, গেল বছরের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পরাজয়ের পর সারা দেশে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম হতাশা ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়া দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে অনিশ্চয়তার কারণেও সংশ্লিষ্টরা উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় আছেন। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নেতাকর্মীদের মনোবল চাঙ্গা ও দলকে সংগঠিত করার উদ্যোগ নেয় বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে দলের মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা কমিটি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো পুনর্গঠনের কাজ শুরু হয়। লন্ডনে অবস্থারত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এ কাজের তত্ত্বাবধান করছেন। এরই মধ্যে অধিকাংশ জেলায় পূর্ণাঙ্গ অথবা নতুন আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়েছে। পাশাপাশি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর মধ্যে কৃষক দল, মৎসজীবী দল, ওলামা দলের আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়েছে। মহিলা দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। শিগগিরই ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে।

বিএনপির জেলা কমিটি পুনর্গঠন ও ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক (রাজশাহী বিভাগ) আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা বহু নির্যাতন-নিপীড়ন, ভয়-ভীতির মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছে। এ অবস্থা থেকে আমরা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি। ত্যাগী ও সাহসীদের নিয়ে কমিটি পুনর্গঠনের মাধ্যমে দলকে সংগঠিত করা হচ্ছে। এ বিভাগের নাটোর ও পাবনা জেলার কমিটি পুনর্গঠনের কাজ বাকি রয়েছে। শিগগিরই একাজ সম্পন্ন হবে বলে আশা করছি।

বিএনপি সংগঠিত হওয়ার জন্য প্রক্রিয়া চালাচ্ছে বলে উল্লেখ করে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন সম্প্রতি বলেন, বিএনপির পুনরায় সংগঠিত হয়ে ঘুরে দাঁড়াবে এবং খালেদা জিয়াকে মুক্ত করেই এ দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করবে।

তিনি বলেন, আমাদের নেতৃত্ব নিয়ে অনেকে প্রশ্ন করেন। পরিষ্কারভাবে বলতে চাইÑ আমাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ইশারায় ও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সরাসরি নেতৃত্বে দল চলছে। একই সঙ্গে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের যৌথ সিদ্ধান্তে দল পরিচালিত হচ্ছে।
সূত্র জানায়, তৃণমূল পুনর্গঠনের পাশাপাশি জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় কমিটিতেও পরিবর্তন দেখতে চান সারা দেশের নেতাকর্মীরা। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটিরও মেয়াদ শেষ হয়েছে। তবে খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ নানা জটিলতায় এ কাউন্সিল কবে হবে তা নিয়ে বিএনপি হাইকমান্ড অনিশ্চয়তায় রয়েছে বলে জানা গেছে।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের ১৯ মার্চ ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে বিএনপির নতুন কমিটি গঠিত হয়। তবে শুরু থেকেই দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম স্থায়ী কমিটির দুইটি পদ ফাঁকা ছিল। পরবর্তীতে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ, এমকে আনোয়ার ও তরিকুল ইসলামের মৃত্যুতে এখন দলের স্থায়ী কমিটির মোট পাঁচটি পদ শূন্য রয়েছে। সেই সঙ্গে দলের আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক, যুববিষয়ক সম্পাদক, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক এবং সহ-ছাত্রবিষয়ক সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদও ফাঁকা রয়েছে। এতে দলটির কার্যক্রমে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে বলে সংশ্লিষ্টরা মন্তব্য করেন।

এদিকে জাতীয় কাউন্সিল নিয়ে অনিশ্চয়তা থাকায় এর আগেই বিএনপির বর্তমান স্থায়ী কমিটির শূন্য পদ পূরণ বা পুনর্গঠন করা হতে পারে। এ বিষয়ে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments