খালেদা মুক্তির আন্দোলন ভুলে গেছে বিএনপি!

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বিএনপির আন্দোলনে বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি নেই। দলটির নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পরিকল্পনাতেও নেই বেগম জিয়ার মুক্তি আন্দোলনের কথা। তিনবারের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর মুক্তির আন্দোলন শব্দটি এখন দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের মুখ থেকেও হারিয়ে যাচ্ছে। একমাত্র রিজভী আহমেদ ছাড়া আর কারও মুখেও এখন খালেদা মুক্তির কথা শোনা যাচ্ছে না। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ভেঙে নতুন বৃহত্তর জোট গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হলেও সে এজেন্ডায় খালেদা জিয়ার মুক্তির কথা নেই। থাকছে শুধু নতুন জাতীয় নির্বাচনের দাবির কথা। এমনকি বিএনপির নবগঠিত ‘ফরেইন রিলেশন কমিটি’ও এ ব্যাপারে ন্যূনতম কোনো ভূমিকা রাখছে না। শুরুতেই নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েছে এই কমিটি। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, বিএনপির নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের কাছে দলের সব আবেগ-অনুভূতি ও জনপ্রিয়তার উৎসই হচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া। তাই নেতা-কর্মীরা মনে করেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া বিএনপির সামনে আরও কঠিন সময় আসবে। দল মুখ থুবড়ে পড়বে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমরা আইনিভাবে তার মুক্তির জন্য চেষ্টা করছি।

রাজনৈতিকভাবেও করব। এ জন্য দলীয় নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষকেই প্রস্তুতি নিতে হবে। অংশ নিতে হবে রাজপথের আন্দোলনে। জানা যায়, এ নিয়ে ফুঁসছে তৃণমূল বিএনপি। তারা চায় দেশব্যাপী কার্যকর কর্মসূচি দিয়ে তাদের নেত্রীকে কারামুক্ত করতে। কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে গরজ না থাকায় তারাও হতাশায় ভুগছেন। তৃণমূলের এই মনোভাবের প্রতি একাত্মতা প্রকাশ করে গত দেড় বছরে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ নেতাদের অপসারণ দাবি করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। ক্ষুব্ধ কণ্ঠে দলের এই নীতিনির্ধারক বলেন, এভাবে চলে না। রাজপথের আন্দোলন ছাড়া বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি হবে না। যত দ্রুত সম্ভব আমাদের দেশব্যাপী এই আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে হবে। তবে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান বলেন, যথেষ্ট হয়েছে। টানা দেড় বছর ধরে বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন। তার মুক্তির দাবিতে কার্যকর একটা কর্মসূচিও এ পর্যন্ত পালন করা সম্ভব হয়নি।

তবে ব্যতিক্রম হলেন রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। দলের এই মুখপাত্র দলীয় কর্মসূচির জন্য অপেক্ষা না করে তার নেত্রীর মুক্তির দাবিতে নিজ উদ্যোগে প্রায়ই হুট করে রাজপথে নেমে যাচ্ছেন ঝটিকা মিছিল নিয়ে। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলন এখন আর বড় নেতাদের মুখেও তেমন শোনা যাচ্ছে না। কর্মসূচি নিয়ে তাদের কেউ মাঠে নামতে রাজি নন। রাজপথের কার্যকর কর্মসূচিতে আগ্রহ নেই কারও। বেশির ভাগ সিনিয়র নেতাই চান কয়েক বছর ধরে যেভাবে দল চলছে, সেভাবেই চলুক। পুলিশ ও প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষে যেটুকু করা যায়, সেটুকুই থাক। কোনো রকমের ঝামেলায় যেতে চান না তারা।

কিছু দিন আগে দলীয় নেত্রীর কারামুক্তি আন্দোলনের ব্যর্থতায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে ব্যর্থ নেতাদের পদ ছেড়ে চলে যেতে বলেছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এবং ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন। এখন আর তেমনটিও শোনা যাচ্ছে না। দলের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন আবারও শীর্ষস্থানীয় নেতাদের নেতৃত্ব ছেড়ে দলের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তরুণ নেতাদের দায়িত্ব প্রদানের আহ্বান জানিয়েছেন। আন্দোলনে ব্যর্থ নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ভালো ভালো বক্তব্য দিয়ে লাভ হবে না। আন্দোলন না করতে পারলে সরে দাঁড়ান। দেশের তরুণ সমাজের হাতে নেতৃত্ব ছেড়ে দেন। যারা রাজপথ উত্তপ্ত করতে পারবে, খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে পারবে, তাদের হাতে দায়িত্ব দিয়ে চলে যান।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box