”করোনায়”লক্ষ্মীপুরে লোক সমাগমে করে মজুচৌধুরীর হাট ফেরীঘাটের দায়িত্ব বুঝে নিলেন চেয়রাম্যান ছৈয়াল

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার মজুচৌধুরীরর হাটের ফেরীঘাটের দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন চররমনী মোহন ইউপি চেয়রাম্যান আবু ইউসুফ ছৈয়াল। চলতি অর্থ বছরে জেলা পরিষদ থেকে ঘাটের ইজারা নেন তার ভাতিজা বাবুল। জেলা পরিষদ থেকে বুধবার ইউপি চেয়ারম্যান ছৈয়ালকে আনুষ্ঠানিভাবে ঘাটের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হয়। এ সময় ঘাটে কয়েকশ লোক জড়ো করান চেয়ারম্যান ছৈয়াল। পুলিশের বিপুল সংখ্যক সদস্যও সেখানে উপস্থিত ছিলো। করোনাকালীন সময়ে শত শত লোকজনের জনসমাগমকে ভালোভাবে দেখছেন না স্থানীয় লোকজন। তাদের মতে, করোনার এ মহামারির সময়ে জনসমাগম করায় ওই এলাকা করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে পড়েছে।
জানা গেছে, ২০২০-২১ অর্থ বছরের জন্য ইউপি চেয়ারম্যান ছৈয়াল মজুচৌধুরীর হাটের ইজারা নেন বাবুল মিয়া নামে তার এক ভাতিজার নামে। এর আগে ঘাটের দায়িত্বে ছিলেন তারই প্রতিদ্বন্ধী ও জেলা পরিষদের সদস্য মো. আলমগীর হোসেন নামের আরেক প্রভাবশালী। ঘাটের দখল নিয়ে দুইজনের মধ্যে দ্বন্ধ লেগে থাকতো। দুই পক্ষের সমর্থিত লোকজনের মধ্যে একাধিকবার হামলার ঘটনাও ঘটেছে।
অভিযোগ রয়েছে, বিগত ১০-১২ বছর ধরে ইজারা ছাড়া ঘাটের অবৈধ দখলদার ছিলেন আলমগীর হোসেন ওরফে আলমগীর মেম্বার। কিন্ত চলতি অর্থ বছরে ইউসুফ ছৈয়াল ঘটের ইজারা নেওয়ায় সরে যেতে হলো আলমগীর মেম্বারকে। বুধবার (১ জুলাই) অনুষ্ঠানিকভাবে ঘাট বুঝিয়ে নিতে বিভিন্নস্থান থেকে লোকজন জড়ো করান চেয়ারম্যান ছৈয়াল। কয়েকশ লোককে সাথে করে দল বেঁধে ঘাটের বিভিন্নস্থানে ঘুরে দায়িত্ব বুঝে নিয়েছেন তিনি। এছাড়া লোক জড়ো করে মিলাদও পড়ান ইউপি চেয়ারম্যান। জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে তাকে ঘাটের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেন সার্ভেয়ার মো. মিজানুর রহমান।

Facebook Comments Box