আত্মবিশ্বাসী নিউজিল্যান্ডের সামনে সাদামাটা শ্রীলঙ্কা

আলোকিত সকাল ডেস্ক

আজ বিকেল সাড়ে তিনটায় ওয়েলসের কার্ডিফে বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে একে অপরের মুখোমুখি হবে নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কা। ২০১৫ সালে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কাকে ৯৮ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপ আসরের শুভ সূচনা করেছিল নিউজিল্যান্ড। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এবারও লঙ্কানদের পক্ষে সেই ফলাফল ঘুরিয়ে দেয়া বেশ কঠিনই হবে।

বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বড় ব্যবধানে হারলেও ব্যাটিং প্রস্তুতিটা ভালোই সেরেছে কিউইরা। তাদের জন্য অনুপ্রেরণা হয়ে থকবে প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে পাওয়া বিশাল জয়। বিরাট কোহলির দলকে সেই ম্যাচে ১৭৯ রানেই বেধে ফেলতে পেরেছিল তারা। জয়ও তুলে নিয়েছে ৬ উইকেটে। তাই আত্মবিশ্বাসের অন্তত কোনো কমতি দেখা যাবে না কিউি শিবিরে।

নিউজিল্যান্ডের জন্য সবচেয়ে ইতিবাচক দিক হয়ে থাকবে তাদের তারকা ট্যাগবিহীন খেলোয়াড়দের জ্বলে ওঠা। ২০১৫ বিশ্বকাপের স্কোয়াড থেকে বাদ পড়া জিমি নিশাম বল হাতে আগুন ঝড়িয়েছেন ভারতের বিপক্ষে, ২৬ রান খরচায় নিয়েছেন ৩ উইকেট। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেঞ্চুরি পেয়েছেন এখনো ওয়ানডে অভিষেক না হওয়া উকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান টম ব্লান্ডেল। ৮ চার ও ৫ ছক্কায় ৮৯ বলে করেছেন ১০৬ রান।

অন্যদিকে শ্রীলঙ্কার বিশ্বকাপ প্রস্তুতি হয়েছে একেবারেই ছন্নছাড়া। ৪ বছর যাবৎ ওয়ানডে ক্রিকেটের বাইরে থাকা দিমুথ করুণারত্নেকে বিশ্বকাপের আগে চমকে দিয়েছিল শ্রীলঙ্কার নির্বাচকরা। তবে তাদের আস্থার প্রতিদান দিতে এ পর্যন্ত ব্যর্থই বলতে হবে তাকে। দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচেই হেরেছে চন্ডিকা হাথুরুসিংহের দল।

প্রস্তুতি পর্বে যা কিছু ইতিবাচক ব্যাপার ঘটেছে শ্রীলঙ্কা দলের পারফরম্যান্সে, তার মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে অধিনায়ক করুণারত্নে ও অলরাউন্ডার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের হাফ সেঞ্চুরি অন্যতম। বেশ কিছুদিন জাতীয় দলের বাইরে কাটিয়ে ফিরেছেন ম্যাথুস। এক দশকের অভিজ্ঞ ও ৪২ ব্যাটিং গড়ের এই লঙ্কানই যা একটু ভরসা দেখাচ্ছেন দলকে।

যাদের দিকে থাকবে বাড়তি নজর:

ট্রেন্ট বোল্ট ( নিউজিল্যান্ড): ৯ ম্যাচে ২২ উইকেট নিয়ে গত বিশ্বকাপে দুর্দান্ত ছিলেন কিউই পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। প্রস্তুতি পর্বেরও সেরা বোলার এই বোল্টই, দুই ম্যাচেই নিয়েছেন ৪টি করে উইকেট। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই নিজের পেস, অ্যাকুরেসি আর সুইং নিয়ে কোন প্রশ্ন তুলতে দেননি বোল্ট। তাই আগামীকাল যদি শ্রীলঙ্কার টপ অর্ডারকে বোল্ট একাই ধ্বসিয়ে দেন, তবে অবাক হবার কিছুই থাকবে না।

দিমুথ করুণারতনে (শ্রীলঙ্কা): ৯৬ এর চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কাকে অনুপ্রাণিত করতে অধিনায়ক করুণারত্নেরই রাখতে হবে মূল ভূমিকা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে ৮৭ রানের একটি ঝকঝকে ইনিংস রয়েছে তার নামের পাশে। ২০১৪ সালে এই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেই ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করেছিলেন করুণারত্নে।

কন্ডিশন কেমন থাকবে?

কার্ডিফে অনুষ্ঠিত হওয়া দুটি প্রস্তুতি ম্যাচেই প্রথমে ব্যাট করা দলের স্কোর ৩০০ ছাড়িয়েছে। আবহাওয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, বৃষ্টির হওয়ার সম্ভাবনা খুবই সামান্য। দিনের অধিকাংশ সময়েই রোদ হাসবে কার্ডিফের আকাশে। তাই রানবন্যাময় একটি পুরো ১০০ ওভারের ম্যাচ আশা করাই যায় আগামীকাল। ম্যাচের শুরুতে সামান্য বাতাস থাকতে পারে মাঠে। তাতে পেসাররা আশা করতে পারেন বাড়তি কিছু সুইংয়ের।

নিউজিল্যান্ডের বিশ্বকাপ স্কোয়াড: কেন উইলিয়ামসন, মার্টিন গাপটিল, হেনরি নিকোলস, রস টেলর, টম লাথাম, কলিন মুনরো, টম ব্লান্ডেল, জেমি নিশাম, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, মিশেল স্যান্টনার, ইশ সোধি, টিম সাউদি, ম্যাট হেনরি, লুকি ফার্গুসন, ট্রেন্ট বোল্ট।

শ্রীলঙ্কার বিশ্বকাপ স্কোয়াড: দিমুথ করুণারত্নে (অধিনায়ক), আভিশকা ফার্নান্দো, লাহিরু থিরিমান্নে, কুশল পেরেরা (উইকেটরক্ষক), কুশল মেন্ডিস, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা, মালিন্দা সিরিওয়ার্দানা, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ, থিসারা পেরেরা, ইসুদু উদানা, লাসিথ মালিঙ্গা, সুরঙ্গা লাকমল, জেফ্রি ভান্দারসে, নুয়ান প্রদীপ।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box