আকরাম-ওয়াকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা ওয়াহাব রিয়াজের

আলোকিত সকাল ডেস্ক

শেষ মুহূর্তে পাকিস্তানের বিশ্বকাপ দলে ওয়াহাব রিয়াজের অন্তর্ভুক্ত হওয়াটা বড় চমক হয়েই এসেছিল। অভিজ্ঞ এ পেসার বিশ্বকাপের জন্য প্রাথমিক দলেই ছিলেন না। বিশ্বকাপের আগে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ চার ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজেও ছিল না তার নাম। সেই ওয়াহাবই বিশ্বকাপে পাকিস্তানের নিয়মিত বোলার। সর্বশেষ ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত জয়ে বল হাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন এই পেসার।

বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাওয়ার আগে ওয়াহাব পাকিস্তান দলে শেষ খেলেছিলেন ২০১৭ সালের জুনে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে। ভারতের বিপক্ষে ৮.৪ ওভারে ৮৭ রান দিয়ে আর সুযোগই পাননি পুরো টুর্নামেন্টে। অনেকেই জাতীয় দলের জার্সিতে ওয়াহাবের শেষও দেখে ফেলেছিলেন। কিন্তু সেই ওয়াহাবই এখন বিশ্বকাপে পাকিস্তান দলের তুরুপের তাস।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পুরো দলের মতো ওয়াহাব হতাশ করলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে জ্বলে উঠেছেন। ইংলিশদের বিপক্ষে জয়ের ম্যাচে দলের পক্ষে নিয়েছিলেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট। আর শেষ মুহূর্তে বিশ্বকাপে আসাকে এক কথায় ‘ভাগ্যের পুরোপুরি পরিবর্তন’ বলে আখ্যায়িত করেছেন ওয়াহাব। এর পেছনে কৃতিত্ব দিচ্ছেন দুই কিংবদন্তি ওয়াসিম আকরাম ও ওয়াকার ইউনিসকে। শুধু কৃতিত্ব দিয়েই থামেননি, তারা না থাকলে তাঁকে ড্রয়িং রুমে বসে বিশ্বকাপ দেখতে হতো বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন ওয়াহাব। ওয়াসিমকে ছোট বেলা থেকেই আদর্শ মানেন ওয়াহাব।

আর ওয়াকার হলেন পাকিস্তান জাতীয় দলে তার সাবেক কোচ। ওয়াহাব রিয়াজ বলেন, ‘আমি ড্রয়িং রুমে বসেও বিশ্বকাপে পাকিস্তানের খেলা দেখতে পারতাম, দেশের জন্য দোয়া করতে পারতাম। কিন্তু আমি এখানে উইকেট পাচ্ছি ওয়াসিমের (আকরাম) অনুপ্রেরণায়। যাকে আমি ছোট বেলা থেকেই বল করতে দেখেছি, তাকে আদর্শ মানি। আমার সাবেক কোচ ওয়াকার (ইউনুস) আমাকে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। তাদের জন্যই আমি বিশ্বকাপে।’

গত সপ্তাহে ওয়াসিম ও ওয়াকারের সঙ্গে দেখা করেছিলেন ওয়াহাব রিয়াজ। সেখান থেকে আত্মবিশ্বাসের বড় জ্বালানি পেয়েছেন তিনি, ‘গত সপ্তাহে আমি তাদের সঙ্গে দেখা করেছি। তারা আমাকে বলেছেন কাউকে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। ওয়াসিম আমাকে বলেছিলেন যে আমাকে দেখে ভালো ছন্দে আছি বলে মনে হয়েছে তার। কথাগুলো আমাকে বেশ অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে।’ এর আগে নিজের খারাপ সময়েও ওয়াসিম ও ওয়াকারকে কাছে পেয়েছেন বলে জানান ওয়াহাব, যখন দলের বাইরে থাকি, তখন অনুপ্রেরণার প্রয়োজন হয়। এই দুজন কিংবদন্তি বোলার আমাকে আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছেন।

আস/এসআইসু

Facebook Comments Box