অ্যাপসে ট্রেনের টিকিট না পাওয়াটা অবশ্যই ব্যর্থতা : রেলমন্ত্রী

আলোকিত সকাল ডেস্ক

ঈদযাত্রায় অ্যাপসের মাধ্যমে রেলের টিকিট বিক্রিতে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য না পাওয়ায় এর ব্যর্থতা নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। তিনি বলেন, যাবতীয় ব্যবস্থা থাকা সত্ত্বেও সিএনএস (রেল সেবা অ্যাপ নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান) যদি তাদের কাঙ্ক্ষিত সেবা না দিতে পারে, সেটা তাদের যেমন ব্যর্থতা, তেমন আমাদেরও ব্যর্থতা। এ দায় রেলপথ মন্ত্রণালয় এড়াতে পারে না।

বুধবার (২২ মে) বেলা ১১টায় রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশনে টিকিট বিক্রি কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে রেলমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এ সময় রেলমন্ত্রী বলেন, যদি অ্যাপসের মাধ্যমে ৫ দিনের মধ্যে সব টিকিট বিক্রি না হয়, তবে সেগুলো কাউন্টারে দেয়া হবে।

অ্যাপস সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে তিনি বলেন, কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিস্টেমের (সিএনএস) সঙ্গে আমাদের চুক্তি ২০০৭ সাল থেকে। এ সেবা প্রদানে তাদের যদি কোনো গাফিলতি থাকে তবে তার বিরুদ্ধে আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নেব। তবু তাদের ব্যর্থতার দায় আমরা এড়াতে পারি না। সিএনএসের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হলে আর বাড়ানো হবে না বলেও জানান রেলমন্ত্রী।

জানা গেছে, গতকাল ইন্টারনেটের মাধ্যমে টিকিট বিক্রি হয়েছে ১৪ হাজার ৭৫৪টি। এর মধ্যে অ্যাপের মাধ্যমে বিক্রি হয়েছে ৫ হাজার ২৪২টি টিকিট।

উল্লেখ্য, ঈদের সময় সরাসরি স্টেশনে না গিয়ে ঘরে বসে সহজেই টিকিট কাটাসহ মোট ১৫টি সেবা প্রদানের সুবিধা নিয়ে গত ২৮ এপ্রিল ‘রেলসেবা’ একটি অ্যাপ উদ্বোধন করেছিল বাংলাদেশ রেলওয়ে। অ্যাপটির উদ্বোধন করেছিলেন রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন।

ঘরমুখী মানুষের স্বস্তির জন্য টিকিট ঘরে বসে কাটার সুবিধা দেয়ার কথা বলা হলেও অসংখ্য অভিযোগ এ মুহূর্তে জমা পড়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়েতে। অভিযোগগুলোর মধ্যে রয়েছে- বিক্রি শুরুর আগেই টিকিট শেষ, সার্ভারে ত্রুটি, টিকিট না দিয়েই টাকা কেটে রাখা ইত্যাদি। অথচ যাত্রীদের এই অভিযোগগুলোর কোনো প্রকার সুরাহা ছাড়াই আজ শুরু হয়েছে ঈদ উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি।

মোবাইল ফোনের এসএমএস, ওয়েবসাইট ও ফিচার অ্যাপসের মাধ্যমে ৫০ শতাংশ টিকিট দেওয়ার কথা বলা হলেও গ্রাহকদের অনেকেরই অভিযোগ এই সেবার বিরুদ্ধে।

যারা স্টেশনে না গিয়ে বাসায় টিকিট কাটতে চেয়েছিলেন তাদের অনেকেই সময়মতো সার্ভারেই ঢুকতে পারেননি। আবার সার্ভারে প্রবেশ করলেও সেখানে দেখানো হচ্ছে টিকিট শেষ।

অনেকের অভিযোগ নির্ধারিত টিকিট মূল্যের চাইতে টিকিটের দাম অনেক বেশি রাখা হচ্ছে। এ বিষয়ে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে জানালেও কোনো সমাধান তারা পাচ্ছেন না বলে জানান। টিকিট না পেয়ে বেশিরভাগ যাত্রীই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অ্যাপটি নিয়ে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments